শিক্ষক বিয়ে না করলে আত্মহ’ত্যা করবে ছাত্রী

জেলার পাকুন্দিয়ায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে এক সপ্তাহ ধরে অবস্থান করছেন ওই কলেজ ছাত্রী। কিন্তু প্রেমিকার আসার খবরে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছেন এমএ কাইয়ুম। প্রেমিক কাইয়ুম বিয়ে না করলে আত্মহ’ত্যার হুম’কি দিচ্ছেন ওই প্রেমিকা। এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় আই’নানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

হাইস্কুলে পড়ার সময় প্রাইভেট পড়তে গিয়ে শিক্ষক কাইয়ুমের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে মেয়েটির। এখন তিনি কলেজে পড়েন। এর মধ্যে তার অন্য এক জায়গায় বিয়েও হয়েছিল। কিন্তু পুরনো প্রেমের টানে স্বামীকে তালাক দিয়ে ছুটে আসেন প্রেমিক স্কুলশিক্ষকের কাছে। কথা ছিল তাদের বিয়ে হবে। কিন্তু এরই মধ্যে আরেক নারীকে বিয়ে করে বসেন স্কুলশিক্ষক কাইয়ুম। এ অবস্থায় প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে অবস্থান নেন ওই কলেজ ছাত্রী। হাতে নেন কীটনা’শকের বোতল। বিয়ে ছাড়া কিছুতেই ফিরবেন না তিনি।

পাকুন্দিয়া উপজেলার চরফরাদী ইউনিয়নের চরটেকিয়া গ্রামের মো. আহাদ মিয়ার মেয়ে ও পাকুন্দিয়া ডিগ্রি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ঝুমা আক্তার। চরতেরটেকিয়া মৌজা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ার সময় একই স্কুলের শিক্ষক এমএ কাইয়ুমের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তিন বছর আগে ঝুমাকে অন্যত্র বিয়ে দেয় তার পরিবার। কিন্তু বিয়ের পরও কাইয়ুম মেয়েটির সঙ্গে মোবাইলে সম্পর্ক রাখার চেষ্টা চালান। এক পর্যায়ে স্বামীর সংসার ফেলে বাবার বাড়িতে চলে আসেন ঝুমা।

স্বজনদের অভিযোগ, বিয়ের প্রলো’ভন দেখিতে গত ২ সেপ্টেম্বর মেয়েটিকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসেন কাইয়ুম। পরদিন কাইয়ুমের সঙ্গে ঝুমার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। তবে এদিন অন্য এক মেয়েকে বিয়ে করেন কাইয়ুম। এতে ক্ষু’ব্ধ হয়ে গত রোববার থেকে কাইয়ুমের বাড়িতে এসে অবস্থান নেয় ঝুমা।

অভিযুক্ত এমএ কাইয়ুম চরতেরটেকিয়া গ্রামের নূরুজ্জামানের ছেলে। তিনি চরতেরটেকিয়া মৌজা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের হিসাবরক্ষন বিষয়ের শিক্ষক। ঝুমার দাবি, ‘তার শিক্ষক কাইয়ুমের সঙ্গে ১০ বছর ধরে সম্পর্ক। তাদের মধ্যে বহুবার শারী’রিক সম্পর্কও হয়েছে। বিয়ের পরও কাইয়ুমের সাথে তার যোগাযোগ ছিল।’

সূত্র: আমাদের সময়।