জিপি থেকে ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট খুলতে লাগছে ১০ সেকেন্ড

মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবার একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে লাগছে মাত্র ১০ সেকেন্ড! এক সময়ের জন্যে এটি বিস্ময়ের হলেও এটিকে সম্ভব করেছে ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবা ‘নগদ’। অথচ মাত্র কিছু দিন আগেও একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে কয়েক পৃষ্ঠার ফর্ম পূরণ করা, ছবি এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি জমা দেওয়ার পরেও কয়েক দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে।

গ্রামীণফোনের গ্রাহকরা এখন থেকে মাত্র ১০ সেকেন্ডের চেয়েও কম সময়ে ‘নগদ’ এরঅ্যাকাউন্ট খোলার সুবিধা পাচ্ছেন। সেবাটি এখন পরীক্ষামূলকভাবে চলছে। আগামী কিছু দিনের মধ্যেই আনুষ্ঠানিকভাবে এটি উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছে গ্রামীণফোন ও ‘নগদ’ এর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এই প্রক্রিয়ায় গ্রামীণফোনের প্রতিটি বায়োমেট্টিক পদ্ধতিতে পরিচয় ভ্যারিফাইড করা গ্রাহক তার মোবাইল ফোন থেকে কেবল *১৬৭# ডায়াল করেলেই ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। প্রক্রিয়াটির মধ্যে গ্রাহককেবল চার ডিজিটের একটি পিন সেট করলেই অ্যাকাউন্ট খোলা সম্পন্ন হবে। তবে গ্রাহক যদি অ্যাকাউন্টটি অ্যাপের মাধ্যমে ব্যবহার করতে চান তাহলে প্লেস্টোর বা অ্যাপস্টোর থেকে ‘নগদ’ এর অ্যাপটি ডাউনলোড করে সেখানে অ্যাকাউন্টটি অ্যাকটিভ করতে হবে।

সাধারণ ক্ষেত্রে যেভাবে অন্যান্য যে কোনো অ্যাপ ডাউনলোডের পর অ্যাকাউন্টটি অ্যাপে ব্যবহার করতে গ্রাহক যেভাবে মোবাইল নম্বর দেওয়ার পর একটি ভেরিফিকেশন কোড পান এখানেও একইভাবে ভেরিফিকেশন কোডিটি সেট করতে হবে। তবেই অ্যাকাউন্টটি অ্যাপে চালু হয়ে যাবে। গত কিছু দিন পরীক্ষামূলকভাবে চলা এই সেবাটির মাধ্যমে এরই মধ্যে গ্রামীণফোনের অসংখ্য গ্রাহক ‘নগদ’ এর অ্যাকাউন্ট খুলেছেন।

প্রযুক্তিগত নতুন এই সেবা চালু করা বিষয়ে ‘নগদ’ এর হেড অব পাবলিক রিলেশন্স মুহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম বলেন, মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবার অ্যাকাউন্ট খোলার প্রক্রিয়াকে সহজতর করতে তারা শুরু থেকেই নানাভাবে কাজ করছেন। সেই প্রক্রিয়ারই অংশ হিসেবেই গ্রামীণফোনের গ্রাহকদের জন্যে এমন সুবিধা চালু করা হয়। ”আমাদের বিশ্বাস অ্যাকাউন্ট খোলার প্রক্রিয়াটা সহজ হলে দেশে অধিক সংখ্যক মানুষকে দ্রুততার সঙ্গে ফাইন্যান্সিয়াল ইনক্লুশানের মধ্যে আনা যাবে,” বলেন জাহিদুল ইসলাম।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো মতে, ব্যাংক এবং বিভিন্ন ধরণের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবার মাধ্যমে বর্তমানে দেশের প্রায় ৬০ শতাংশ মানুষ ফাইন্যান্সিয়াল ইনক্লুশানের আওতায়ভূক্ত। ‘নগদ’ প্রত্যাশা করে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে দেশের সকল মানুষ ফাইন্যান্সিয়াল সেবার আওতায় থাকবে।

এর আগে প্রথমে টেলিটক এবং পরে রবি ও এয়ারটেলের গ্রাহকদের জন্যেও একই প্রক্রিয়ায় ‘নগদ’ এর অ্যাকাউন্ট খোলার সুবিধা চালু করা হয় এবং সেখানেও বেশ সাড়া মেলে। এখনো দুটি অপারেটর থেকে এই প্রক্রিয়ায় সহজেই অনেক গ্রাহক অ্যাকাউন্ট খুলছেন। গ্রামীণফোনের পর বাংলালিংকের গ্রাহকদের জন্যেও একই সুবিধা চালু করতে এরই মধ্যে অপারেটরটির সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছে ‘নগদ’।

ডিজিটাল কেওয়াইসিসহ একের পর এক নানান ধরনের প্রযুক্তিগত সুবিধা নিয়ে নিত্যনতুন আকর্ষণীয় সেবা আর হাজির হচ্ছে ‘নগদ’। *১৬৭# ডায়াল করে অ্যাকাউন্ট খোলার প্রক্রিয়াও তারই একটি অংশ। ‘নগদ’ বলছে, যেহেতু মোবাইল অপারেটদের কাছে তার গ্রাহকের সকল তথ্য বায়োমেট্টিক ভেরিফিকেশন করা আছে সুতরাং একই তথ্য বারবার বিভিন্ন কোম্পানিকে না দিয়ে এক জায়গা থেকেই সেটি সকলে ব্যবহার কতে পারে। এই সেবাটি চালু করতে আগেই বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের কাছ থেকে অনুমোদন নিয়েছে গ্রাহক সংখ্যার বিবেচনায় দ্বিতীয় অপারেটর ‘নগদ’।

কমিশনের হিসেব অনুসারে, জুন পর্যন্ত গ্রামীণফোনের কার্যকর গ্রাহক সংখ্যা ছিল সাত কোটি ৪৫ লাখ। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসেব অনুসারে জুলাই মাসের শেষে দেশে নয় কোটি ২৬ লাখ মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকাউন্ট আছে যার মধ্যে চার কোটি ২৭ লাখ অ্যাকাউন্ট কার্যকর আছে।- কালের কণ্ঠ অনলাইন।