৯০ দশকের খেলোয়াড় অথচ এখনো তরুণদের মত ক্রিকেট খেলে যাচ্ছেন

৯০-এর দশক, এরপর এই শতাব্দীর প্রথম তিন দশক-আলাদা আলাদা চারটি দশকে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা হয়ে গেল তাঁর। ১৯৯৯ সালে শারজায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে পাকিস্তানের অলরাউন্ডার শোয়েব মালিকের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক। খেলে চলছেন এই ২০২০ সালেও।

আলাদা চারটি দশকে পাকিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করা প্রথম ক্রিকেটার মালিক। যদিও এই রেকর্ড তার আগে গড়েছেন আরও সাতজন। তাঁরা হলেন শচীন টেন্ডুলকার, সনাৎ জয়াসুরিয়া, উইলফ্রেড রোডস, ব্রায়ান ক্লোজ, ফ্র্যাঙ্ক উলি, জ্যাক হবস ও জর্জ গান এই কীর্তি গড়েছেন।

সাতজনের একজন শ্রীলঙ্কার সনাৎ জয়াসুরিয়া। ১৯৯৬ বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক শোয়েব মালিককে স্বাগত জানিয়েছেন নিজেদের ক্লাবে। মালিক কীভাবে এত লম্বা সময় টিকেছেন, সেই ব্যাখ্যাও ভারতের ডেকান ক্রনিকলকে দিয়েছেন জয়াসুরিয়া, ‘তাঁর দীর্ঘ ক্যারিয়ারের রহস্য হলো তাঁর ফিটনেস। ক্যারিয়ারকে এত দূর টেনে আনতে পারাটা অবিশ্বাস্য চেষ্টার ফসল।

আজকাল যে পরিমাণ ম্যাচ খেলা হয়, তাতে এই অর্জনকে খুব কঠিন বলতেই হয়। এ রকম লম্বা ক্যারিয়ার খুব কম ক্রিকেটারের আছে। অবিশ্বাস্য রকম ফিট না হলে এত দিন টেকা সম্ভব নয়।’