ইমরান খান আমার দেখা সেরা পরিশ্রমী ক্রিকেটার : কপিল দেব

দু’জনেই নিজের নিজের দেশের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক। শুধু তাই নয়, অলরাউন্ডার হিসেবে দু’জনেই নিজের নিজের দেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে প্রথম সারিতে থাকবেন। অধিনায়ক হিসেবে সমসাময়িক হওয়ার সুবাদে দু’জনের দ্বৈরথ বেশ জনপ্রিয় ছিল। একজন ভারতের প্রথম বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিল দেব ও অন্যজন পাকিস্তানের একমাত্র বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক তথা বর্তমানে সেদেশের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

সেই ইমরানের উদ্দেশে কপিলের মন্তব্য, তিনি তাঁর দেখা সেরা পরিশ্রমী ক্রিকেটার।সম্প্রতি একটা অনুষ্ঠানে এই বিষয়ে নিজের মন্তব্য করেন কপিল দেব। তিনি ইমরানকে তাঁর দেখা সেরা অ্যাথলিট না বললেও ইমরানকে তাঁর দেখা সেরা পরিশ্রমী ক্রিকেটার হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন, “আমি এটা বলব না যে ইমরান খান আমার দেখা সেরা অ্যাথলিট কিংবা সেরা প্রতিভাবান ক্রিকেটার। কিন্তু একটা কথা বলতে চাই, ইমরান আমার দেখা সেরা পরিশ্রমী ক্রিকেটার।

যখন উনি কেরিয়ার শুরু করেন, ওনাকে দেখে খুবই সাধারণ মনে হত। কিন্তু ধীরে ধীরে উনি নিজের পরিশ্রমে এক সেরা ফাস্ট বোলার হয়ে উঠেছেন। নিজের বলেই সবকিছু উনি শিখেছেন। তারপরে নিজের ব্যাটিং নিয়েও নিজেই পরিশ্রম করেছেন ইমরান। ব্যাটিংয়েও উন্নতি করেছেন তিনি।” নিজেকে অবশ্য রিচার্ড হ্যাডলি, ইয়ান বোথাম ও ইমরান খানের থেকে ভাল অ্যাথলিটের তকমা দিয়েছেন কপিল দেব। তিনি বলেন, “আমি আমাকে সেরা অ্যাথলিট বলব না।

তবে আমি বলতে পারে হ্যাডলি, বোথাম ও ইমরানের থেকে ভাল অ্যাথলিট আমি ছিলাম। আর আমাদের মধ্যে সেরা বোলার ছিলেন হ্যাডলি। ওনার মস্তিষ্ক ছিল কম্পিউটারের মতো প্রখর।” ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপ ব্যাট ও বল হাতে নিজের কৃতিত্বের পরিচয় দিয়েছিলেন কপিল দেব। টুর্নামেন্টে ৩০৩ রান ও ১২ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। তার মধ্যে সেমিফাইনালে জিম্বাবোয়ের বিরুদ্ধে ১৭৫ রানের বিধ্বং’সী ইনিংস খেলেছিলেন কপিল দেব। ৫ উইকেট পড়ে যাওয়ার পরে কপিলের সেই ইনিংসের বলেই একটা টার্গেটে পৌঁছতে পেরেছিল ভারত।

শুধুমাত্র তাই নয়, ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিধ্বংসী স্যার ভিভ রিচার্ডসের ক্যাচ প্রায় ৪০ গজ পিছনে দৌড়ে ধরেছিলেন কপিল দেব। সবার মতে সেটাই ছিল ওই বিশ্বকাপের ফাইনালের টার্নিং পয়েন্ট। তার জেরেই প্রথমবার বিশ্বকাপ জিততে পেরেছিল ভারত।