জলপাই চুল পড়া, ক্যা’নসার ও হা’র্ট অ্যা’টাকের ঝুঁ’কি কমায়

জলপাই একটি সুপরিচিত ফল। অনেকেই জলপাই পছন্দ করেন। কেউ কেউ আবার পছন্দ করেন এ আচার। শীতকালীন এ ফল নানা পুষ্টিগুণে ভরপুর। আছে স্বাস্থ্য উপকারিতাও।

পুষ্টিগুণ: এটি ভি’টামিন সি-এর একটি ভালো উৎস। গবেষণায় দেখা গেছে, এই ফল খনিজ, ভি’টামিন, ফাইবার এবং অ্যা’ন্টিঅক্সি’ডেন্ট সমৃদ্ধ।

প্রতি ১০০ গ্রাম জলপাইয়ে খাদ্যশক্তি ৭০ কিলো’ক্যালরি, ৯ দশমিক ৭ শর্করা, ৫৯ মিলিগ্রাম ক্যাল’সিয়াম ও ১৩ মিলিগ্রাম ভি’টামিন-সি।

স্বাস্থ্য উপকারিতা: ১. জলপাইয়ের তেলে পাওয়া যায় ফ্যাটি অ্যা’সিড ও অ্যা’ন্টিঅক্সি’ডেন্ট, যা ত্বক ও চুলের যত্নে কাজ করে। জলপাইয়ের তেল চুলের গোড়া মজবুত করে। চুল পড়ে যাওয়ার সমস্যা দূর হয়। জলপাইয়ের ভি’টামিন-ই ত্বকে মসৃণ ভাব আনে। ২. জলপাইয়ের তেল হা’র্ট অ্যা’টাকের ঝুঁ’কি কমায়। ৩. নিয়মিত জলপাই খেলে গ্যা’স্ট্রিক ও আল’সার কম হয়। বিপাকক্রিয়া ঠিকভাবে হয়। ৪. কালো জলপাই ভি’টামিন-ই এর ভালো উৎস। এটি ফ্রি র‌্যাডিকেল ধ্বং’স করে। ফলে শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে। জলপাইয়ের ভি’টামিন-ই কোষের অস্বাভাবিক গঠনে বাধা দেয়। ফলে ক্যা’নসারের ঝুঁ’কি কমে।

৫. জলপাইয়ের মনো স্যাচুরেটেড চর্বিতে থাকে প্রদাহবি’রোধী উপাদান। হা’ড়ের ক্ষ’য়রোধ করে জলপাই তেল। ৬. নিয়মিত জলপাই খেলে পিত্ত’থলির পি’ত্তরস ঠিকভাবে কাজ করে। পি’ত্তথলিতে পা’থর হওয়ার প্রব’ণতা কমে যায়। ৭. জলপাই প্রাকৃতিক অ্যা’ন্টিঅক্সি’ডেন্ট। এতে প্রচুর পরিমাণে ভি’টামিন সি আছে। স’র্দি, জ্ব’র ইত্যাদি দূরে থাকে। রোগপ্রতিরো’ধ ক্ষমতা বাড়ে। ৮. জলপাই র’ক্তের চিনি নিয়’ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।