বাংলাদেশের কুকুর রান্না হচ্ছে ভারতের বিভিন্ন হোটেলে!

দেশের সীমান্তবর্তী খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালার বিভিন্ন এলাকা থেকে কুকুর পাচার হচ্ছে ভারতে। এসব কুকুর ভারতের মিজোরামে বিক্রি হচ্ছে প্রতিটি ৬ থেকে ৭ হাজার টাকায়। উদ্ভুত পরিস্থিতে মিজোরাম সরকার সেখানে কুকুর বিক্রি নিষি’দ্ধ করেছে। তবে তাতে বাংলাদেশ থেকে কুকুর পা’চার বন্ধ হচ্ছে না। পাহাড়ি এলাকার হাটসহ বিভিন্ন এলাকায় ফাঁদ পেতে কুকুর শিকার করছে একটি চ’ক্র।

কুকুরগুলো সনাতনী ফাঁদে আ’টকানোর পর সরু তার দিয়ে মুখ বেঁধে দেয়া হয়। এ ছাড়া প্রতিটি কুকুরের গলায় আ’টকে দেয়া হয় শুকনো বাঁশ। খাগড়াছড়ির দীঘিনালার বোয়ালখালি বাজার, বাবুছড়া, থা’না বাজার থেকে বেশি কুকুর ধরা হয়। কুকুর শিকারিরা হাটে ঘুরে ঘুরে কুকুর ধরে। এসব কুকুর মিজোরামের বিভিন্ন হোটেল ব্যবসায়ী কিনে তার মাংস রান্না করেন বলে জানা গেছে।

গত বুধবার দীঘিনালা থেকে ৩৫টি কুকুর ধরে নিয়ে যায় ৫ কুকুর শিকারি। দীঘিনালার বাবুছড়া বাজার থেকে এ সব কুকুর শিকার করা হয়। কুকুরগুলো রাঙ্গামাটির মাইনী বাজার হয়ে কাপ্তাই হৃদ দিয়ে মিজোরামে নেয়া হয়। কুকুরগুলো নিয়ে যাওয়ার সময়কার ছবি সামাজিকমাধ্যমে ভাই’রাল হয়েছে।

এ বিষয়ে পিপলস ফর অ্যানি’ম্যাল ওয়েলফেয়ারের প্রতিষ্ঠাতা রাকিবুল হক এমিল গণমাধ্যমকে বলেন, বাংলাদেশ প্রাণিকল্যাণ আই’ন ২০১৯ মতে মালিকবিহীন কুকুর হ’ত্যা বা অপসারণ করা আই’নত দ’ণ্ডনীয় অপরা’ধ। যার সাজা ৬ মাস জেল এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানা।

দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ উল্ল্যাহ গণমাধ্যমকে জানান, বিষয়টি আমি ফেসবুকে দেখেছি। এরপর কোনো শিকারি সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট ত’থ্য থাকলে আমরা আই’নগত ব্যবস্থা নেব।

খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস এ ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করে গণমাধ্যমকে জানান, এই বিষয়টি আমি প্রথম শুনেছি। কোনো প্রাণীর সঙ্গে নিষ্ঠুর আ’চরণ করা যাবে না। এই বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছি।

সূত্র: সময় নিউজ।