ধোনিও প্রতা’রণা করতে জানে , চরম বিত’র্কের মুখে ধোনি

টম কারানের আউট নিয়ে আম্পায়াকেক সঙ্গে ত’র্কে জড়ালেন চেন্নাই অধিনায়ক। ফলস ক্যাচের দাবি জানিয়েও আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক ধোনির। সোশ্যাল মিডিয়ায় চেন্নাই অধিনায়ককে নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে বিত’র্ক। আ’গুনে ঘি ঢালেন ধোনি পত্নী সাক্ষী। মাহির পাশে দাঁড়িয়ে আইপিএলে নিম্নমানের আম্পায়ারিং নিয়ে প্রশ্ন তুললেন তিনি। যদিও তাতে নেটিজেনদের ক্ষো’ভের মুখে পড়তে হয় সাক্ষীকেও।

রাজস্থান বনাম চেন্নাই ম্যাচে টম কারানের আউট নিয়ে রীতিমতো নাটক দেখা যায়। রাজস্থান ইনিংসের ১৮তম ওভারে (১৭.৫) চাহারের বলে টম কারানের কট বিহাইন্ডের আবেদন জানায় চেন্নাই সুপার কিংস। আম্পায়ার আউটও দেন। যদিও কারান দাবি করেন বল তাঁর ব্যাটে লাগেনি।

রাজস্থানের কাছে রিভিউ বাকি ছিল না। তাই ফিল্ড আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী টম কারানের সাজঘরে ফেরা উচিত ছিল। কিন্তু ফিল্ড আম্পায়াররা জায়ান্ট স্ক্রিনে রিপ্লে দেখে তৃতীয় আম্পায়ারের সাহায্য নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। কেঁচো খুঁড়তে বেরিয়ে পড়ে কেউটে। দেখা যায় বলটি ঠিক মতো দস্তানাবন্দিই করেননি ধোনি।

প্রথমত, বল টম কারানের ব্যাটে লাগেনি। বল তাঁর থাই প্যাডে লেগেছিল। পরে দেখা যায় বল মাঠ ছোঁয়ার পর ধোনির দস্তানায় জমা পড়েছে। ধোনি সম্ভবত বুঝতেও পেরেছিলেন সেটা। তা সত্ত্বেও তিনি আউটের আবেদন করেন। তৃতীয় আম্পায়ার যদিও কারানকে নট-আউট ঘোষণা করেন। তার পরেই ধোনিকে আম্পায়ারদের সঙ্গে ত’র্ক করতে দেখা যায়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ধোনির এমন ফলস ক্যাচের আবেদন নিয়ে নিন্দা শুরু হয়। অতীতের উদাহরণ টেনে বলা হতে থাকে যে, ধোনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও এমন ফলস ক্যাচের আবেদন করেছেন। কেউ কেউ গত বছর আরসিবি ম্যাচে ধোনির মাঠে নেমে অম্পায়ারের সঙ্গে আঙুল তুলে ত’র্ক করার ছবি সামনে এনে দাবি করেন, ধোনি নিজের সম্মান খোয়াচ্ছেন এমন আচরণে।

এরই মধ্যে সাক্ষী ধোনি সোশ্যাল মিডিয়ায় মন্তব্য করে বসেন যে, তিনি এই প্রথমবার দেখছেন আম্পায়ার ব্যাটসম্যানকে আউট দেওয়ার পর থার্ড আম্পায়ারের কাছে সিদ্ধান্ত জানতে চাইছেন। ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে তিনি দাবি করেন, যেহেতু কোটি কোটি লোক খেলা দেখছেন, তাই আম্পায়ারিংয়ের মান আরও ভালো হওয়া দরকার। পরে তিনি পোস্টটি ডিলিট করে দেন।

পরে আই ফোন থেকে আরও একটি টুইটে সাক্ষী লেখেন, ‘প্রযুক্তি যদি ব্যবহার করা হয়, তবে সেটা সঠিকভাবে ব্যবহার করা দরকার। আউট আউটই হয়। সেটা ক্যাচ হোক বা এলবিডব্লিউ।’

অর্থাৎ, সাক্ষীর দাবি, কারানকে ক্যাচ আউট না দেওয়া হলেও এলবিডব্লিউ দেওয়া যেত। যদিও তাতে বিত’র্ক ধামা চাপা পড়ছে না মোটেও। ধোনি যে সত্যিটা জেনেই ফলস ক্যাচের দাবি জানিয়েছেন, এই বিষয়টাই মেনে নিতে পারছেন না ক্রিকেটপ্রেমীরা। চাপে পড়ে সাক্ষী অবশ্য এই পো’স্টটিও ডিলি’ট করে দেন।