২ বলে ২৭ রান দিয়ে অবিশ্বাস্য এক ঘটনা ঘটালেন আফ্রিকান পেসার লুঙ্গি এনগিডি!

লুঙ্গি এনগিডি যেন হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন। টানা পঞ্চম ছক্কা হজম করতে হয়নি তরুণ এই প্রোটিয়া পেসারকে। অপরদিকে হতাশ জোফরা আর্চার। শট মিস করে টানা চার ছক্কায় থামতে হলো তাকে। তবে ততক্ষণে স্কোরবোর্ড দেখাচ্ছে এনগিডির দুই বল থেকে আর্চার তুলে নিয়েছেন ২৭ রান!

চোখ কপালে তোলার মতো হলেও এটাই ঘটেছে চেন্নাই সুপার কিংস এবং রাজস্থান রয়্যালসের মধ্যকার ম্যাচে। মঙ্গলবার রাতে এবারের আইপিএলের চতুর্থ ম্যাচে এমন লজ্জার শিকার হতে হলো প্রোটিয়া পেসার এনগিডিকে। রাজস্থান ইনিংসের শেষ ওভারে বোলিং করতে আসেন এনগিডি। ব্যাটিংয়ে স্ট্রাইক প্রান্তে আর্চার এবং নন-স্ট্রাইক প্রান্তে টম কারেন। রাজস্থানের স্কোর তখন ৭ উইকেটে ১৮৬।

এমন অবস্থায় হয়ত দুইশ রানের কথাই ভেবেছিল রাজস্থান শিবির। কিন্তু আর্চার ভেবেছিলেন ভিন্ন কিছু। অবশ্য সেইক্ষেত্রে সাহায্য করেছেন এনগিডিই। প্রথম বল ইয়র্কার মিস করে স্লটে দিলেন আর্চারকে। খুব সহজে সেটি সীমানা পার করলেন আর্চার।

দ্বিতীয় বলে শর্ট বল ছুড়লেন আর্চারকে। কিন্তু সজোরে হাঁকিয়ে মিডউইকেটের উপর দিয়ে ছয় আদায় করে নিলেন ক্যারিবিয়ান বংশোদ্ভুত ইংলিশ এই অলরাউন্ডার। অর্থাৎ, দুই বলে ১২ রান। পরের দুই বলে এনগিডি করে বসলেন দুটি নো বল। আর দুটি বলেই দুই ছক্কা হাঁকিয়ে এনগিডিকে লজ্জা উপহার দিলেন আর্চার। দুই বলেই উঠে গেলো ২৬ রান।

পরের বলে এনগিডি স্লোয়ারে বোকা বানালেন আর্চারকে। কিন্তু ওয়াইড সিগন্যাল দিলেন আম্পায়ার। ফলে দুই বলেই এনগিডি হজম করলেন ২৭ রান। তবে এরপরও ভাগ্যবান বলা চলে প্রোটিয়া এই পেসারকে। কারণ এনগিডির পরের চার বল থেকে আর মাত্র তিন রান তুলতে পেরেছিল আর্চার-কারেন। এরমধ্যে তৃতীয় বল মিস করেন আর্চার। বাকী তিন বলে তিন সিঙ্গেল নিতে পারেন আর্চার-কারেন।

শেষ পর্যন্ত আর্চার ঝড়ে ২১৬ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় রাজস্থান। জবাবে খেলতে নেমে ২০০ রান তোলে চেন্নাইও। তবে আর্চারের শেষ ঝড়ে ১৬ রান দূরে থাকতে হার মানতে হয় চেন্নাইকে।