এবার চ্যালেঞ্জের মুখে সৌদি রাজতন্ত্র, বি’রোধী দল গঠন

সৌদি আরবের নির্বাসিত ভিন্নমতাবলম্বীরা রাজতন্ত্রের বিরু’দ্ধে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বিরো’ধী দল গঠন করেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে নির্বাসিত সৌদি নাগরিকেরা ‘ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি পার্টি’ নামে বুধবার ওই দল গঠনের ঘোষণা দেন। বাদশাহ সালমানের নেতৃত্বের বিরু’দ্ধে এটাই সে দেশে প্রথম কোনও সংগঠিত রাজনৈ’তিক প্রতি’রোধ। সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, রাজতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতেই শাসকদের বিরো’ধিতায় দল গঠনের ঘোষণা আসল।

সৌদি আরব রাষ্ট্র হিসেবে একটা নিখুঁত রাজতান্ত্রিক ব্যবস্থার অধীন। কোনও ধরনের রাজ’নৈতিক বিরো’ধিতার সুযোগই নেই সেখানে। এমনকি সম্প্রতি ভিন্নমতাবলম্বীদের ওপর দম’নপীড়ন পূর্বের তুলনায় আরও বেড়েছে। এমন প্রেক্ষাপটেই ২৩ সেপ্টেম্বর রাজতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বি’রোধী দল গঠনের ঘোষণা দেওয়া হয়।

এর আগে ২০০৭ ও ২০১১ সালেও বিরো’ধী দল গঠনের প্রচেষ্টা নেওয়া হয়েছিল। তবে গ্রে’ফতারসহ বিভিন্ন ধরনের বলপ্রয়োগের মধ্য দিয়ে তা দ’মন করা হয়। দল গঠনের উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে বুধবার দেওয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে: ‘আমরা ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি পার্টি নামের একটি রাজনৈ’তিক দল গঠনের ঘোষণা দিচ্ছি। আমাদের লক্ষ্য সৌদি আরবে গণতা’ন্ত্রিক শাস’নব্যবস্থা প্রবর্তন করা’।

ঘোষিত রাজনৈ’তিক দলের ঘ’নিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, দলের নেতৃস্থানীয় পর্যায়ে রয়েছেন লন্ডনভিত্তিক বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী ইয়াহা আসিরি। সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন শিক্ষাবিদ মাদায়ি আল-রশিদ, গবেষক সাঈদ বিন নাসের আল-গামদি, যুক্তরাষ্ট্রে নির্বা’সিত আবদুল্লাহ আলাউদ এবং কানাডায় থাকা ওমর আবদুল আজিজ।

নতুন রাজনৈ’তিক দল গঠনের ঘোষণা মানেই প্রবল ক্ষমতাধর সৌদি রাজতান্ত্রিক ব্যবস্থার পতন নয়। তবে তেলের দাম হ্রাস পাওয়ার পাশাপাশি জি-২০ বৈঠক নিয়ে ব্যস্ত সৌদি শাস’কের জন্য এটি স্পষ্টত একটি চ্যালেঞ্জ আকারে হাজির হয়েছে।

দলের সাধারণ সম্পাদক আসিরি বলেছেন, ‘এক চরম সংক’টময় মুহূর্তে দেশকে রক্ষা করার তাগিদ থেকে আমরা এই দল গঠনের ঘোষণা দিয়েছি। আমাদের লক্ষ্য গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়া এবং শাস’নকাজে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটানো।’ খবর আলজাজিরা, এএফপি।