‘মানুষের সমর্থন আছে বলেই ষ’ড়য’ন্ত্র মোকাবেলা করতে পারছি’

ফাইল ছবি

মানুষের আস্থা ও সমর্থন আছে বলেই সব ষ’ড়য’ন্ত্র মোকাবেলা করা সম্ভব হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ওপর এদেশের মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস আছে। যে কারণে তারা আমাদের বারবার নির্বা’চিত করেছে বলেই তাদের সেবা করতে পেরেছি। দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় থাকতে পেরেছি বলেই উন্নয়নগুলো দৃশ্যমান হচ্ছে। উন্নয়নগুলো করতে পারছি, যার সুফল দেশের মানুষ ভোগ করছে।

আজ শুক্রবার সকালে জাতির পিতার জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ প্রদান দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক সভায় এ কথা বলেন তিনি। গণভবন থেকে ওই আলোচনাসভায় ভি’ডিও কনফারেন্সে যোগ দেন তিনি। সরকারপ্রধান বলেন, ‘৭৫-এর ১৫ আগস্ট যে ঘাত’কের দল জাতির পিতাকে হ’ত্যা করেছিল, তার দোসর যারা, তারা এ দেশে কখনো স্থিতিশীল সরকার থাকুক তা তারা চায়নি, যার জন্য মাঝে মাঝেই চেষ্টা করে একটা অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করতে চায়।

এ প্রচেষ্টা যখন চালায় তখন আমরা দেখি অ’গ্নিসংযো’গ করে জীবন্ত মানুষকে হ’ত্যা করা অথবা মানুষকে খু’ন করা অথবা নানা ধরনের ঘটনা ঘটানো। আমাদের সব অবস্থাই মোকাবেলা করতে হয়। তিনি বলেন, বিশ্বে করোনাভা’ইরাস নামে এখন যে মহাদু’র্যোগ চলছে, তা থেকে বিশ্ববাসী শিগগিরই মুক্তি পাক- এটাই আমাদের আকা’ঙ্ক্ষা। মানুষ আবার সম্পূর্ণভাবে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারুক- এটাই আমরা চাই। এই সময় আমাদের সাধারণত জাতিসংঘে থাকার কথা। কিন্তু যেতে পারিনি করোনাভাই’রাসের কারণে। প্রতিবার আমি জাতিসংঘে ভাষণ দিয়েছি।

এবার আমার ১৭তম ভাষণ আমি দিতে পারছি না, এটা দুঃখজনক। আসলে জাতিসংঘে সব দেশের নেতাদের সঙ্গে দেখা হওয়ার একটা সুযোগ তৈরি হয়। পরস্পরের সঙ্গে অভিজ্ঞতা বিনিময় হয়। একে অপরকে কিভাবে সহযোগিতা করা যায়, কিভাবে এগিয়ে নেওয়া যায়, একে অপরকে জানতে পারি। শেখ হাসিনা বলেন, আমি ভেবেছি, করোনাভাই’রাসের কারণে হয়তো বিশ্বে দু’র্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে। তাই সত’র্ক ছিলাম, বাংলাদেশে যেন কোনোভাবেই সেই দু’র্ভিক্ষের প্রভাব না পড়ে।

যতটুকু পারি খাদ্য উৎপাদন করা, খাদ্য বিতরণ করা, দরিদ্র মানুষকে বিনা পয়সায় খাদ্য দেওয়া এবং খাদ্যের নিশ্চয়তা দেওয়া, সেই প্রচেষ্টা আমরা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধু ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর, ওই দিনটিও শুক্রবার ছিল, তিনি বাংলায় ভাষণ দিয়েছিলেন। তা যদি আমরা পর্যালোচনা করি, তিনি যে কথাগুলো বলেছিলেন, তা অত্যন্ত তাৎপর্য’পূর্ণ। দু’র্যোগে যদি মানুষ ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়, এর জন্য সহযোগিতা করা,

ন্যা’য়বিচার প্রতিষ্ঠা, মানুষের সামাজিক উন্নয়ন, গরিব মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন, রোগ-শোক মোকাবেলায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারো সাথে বৈরি’তা নয়; জাতির পিতার দেখানো দেশের পররাষ্ট্রনীতির মূলনীতি এখনো তাঁর সরকার অনুসরণ করে তাঁর সরকার দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ঘটিয়ে চলেছে- যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

সূত্র: কালের কণ্ঠ অনলাইন।