ভারতে মুসলিমরাই নির্যা’তনের শি’কার, নিশানা করে তাদের মা’রা হচ্ছে : জাতিসংঘে ইমরান খান

শুধু কাশ্মীর নয়, জাতিসংঘের ৭৫তম সাধারণ সভার বক্তৃতায় খোলাখুলি হিন্দু-মুসলিম তাসই খেলে দিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ভারতের রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘকে নাৎসি পার্টির সঙ্গে তুলনা করলেন। বাবরি মসজিদ ধ্বং’স থেকে শুরু করে গুজরাত দা’ঙ্গা, দিল্লির সং’ঘ’র্ষ, একের পর এক উদাহরণ দিয়ে অ’ভিযো’গ তুললেন, ভারতে মুসলিমরাই নির্যা’তনের শি’কা’র।

ভি’ডিও লি’ঙ্কে পর্দায় পাক প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা শুরু হতেই জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টি এস তিরুমূর্তি ওয়াক আউট করেন, যাকে চ’র’ম কূ’টনৈ’তিক প্র’তিবা’দ হিসেবেই দেখছে সং’শ্লি’ষ্ট মহল। পরে টুইটারে তিরুমূর্তি লেখেন, ”কূ’টনৈ’তিক নি’ম্নগা’মিতার নতুন স্তরে পৌঁছল পাক প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা। তা মিথ্যা, ব্যক্তিগত আ’ক্র’মণ, যু’দ্ধবা’জ মনোভাবে পরিপূর্ণ। পাকিস্তানের সংখ্যাল’ঘুদের দু’র্দ’শা, সীমান্তপারের স’ন্ত্রা’সবাদের মতো বিষয়গুলি অন্ধ’কারেই রয়ে গেল। জ’বা’ব দেওয়ার অধিকার যথাযোগ্য ভাবেই প্রয়োগ করা হবে।”

আগামিকাল সাধারণ সভায় বক্তৃতা দেওয়ার কথা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর। ইমরান আজ বলেন, ”নাৎসিদের বি’দ্বে’ষের ল’ক্ষ্য ছিলেন ইহুদিরা। আরএসএসের নি’শা’না মুসলিমরা। খ্রিস্টানদের ক্ষেত্রে কিছুটা কম। গাঁন্ধী-নেহরুর ধর্মনি’রপে’ক্ষতার ব’দলে এখন এসেছে হিন্দু রাষ্ট্র তৈরির স্বপ্ন। যেখানে ল’ক্ষ্য হল, মুসলিম ও অন্য সংখ্যাল’ঘুদের শা’সন করা, এমনকি মুছে ফেলা।”

ইমরানের অ’ভিযো’গ, দিল্লির সং’ঘ’র্ষে নি’শা’না করে মা’রা হয় মুসলিমদের। গু’জরা’ত দা’ঙ্গায় সংখ্যাল’ঘুদের নিহ”ত হওয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ”এটা হয়েছিল (তৎকালীন) মুখ্যমন্ত্রী মোদীর শা’সনে।” ইমরানের বক্তব্য, অভূতপূর্ব ভাবে ‘হিন্দুত্বের আদর্শে’ ৩০ কোটি মুসলিম, খ্রিস্টান, শিখেদের নি’র্যা’তন করা হচ্ছে।

করোনা পরি’স্থি’তিতেও মোদী সরকার বৈ’ষ’ম্যমূলক নীতি নিয়েছে বলে অ’ভিযো’গ করে তিনি জানান, ভারতে সং’ক্র’মণ ছড়ানোর জন্য দা’য়ী করা হয়েছে মুসলিমদের। অথচ তারা অনেক ক্ষেত্রে যথাযথ চিকিৎসা পাননি।

সূত্র : আনন্দবাজার