সিলেট এমসি কলেজে ধ’র্ষণ: প্রধান অভিযুক্ত গ্রে’ফতার করেছে পুলিশ

সিলেটের এমসি কলেজে তরুণী ধ’র্ষণের ঘটনার প্রধান অভিযুক্তকে সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে গ্রে’ফতার করেছে পুলিশ। সুনামগঞ্জের এসপি মিজানুর রহমান বিবিসি বাংলাকে জানান সকালবেলা ছাতক থেকে ঘটনার প্রধান অভিযুক্তকে গ্রে’ফতার করেছে। তিনি বলেন, “সকালে ছাতক থেকে একজনকে গ্রে’ফতার করা হয়েছে। আমাদের জানামতে মা’মলার এজাহার অনুযায়ী আট’ক করা ব্যক্তিই প্রধান অভিযুক্ত।”

শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে সিলেটের টিলাগড় এলাকার এমসি কলেজের গেটের সামনে থেকে ঐ তরুণীকে তুলে নিয়ে যায় কয়েকজন। ঐ তরুণী তার স্বামীর সাথে একটি গাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। তরুণীর স্বামী এজাহারে উল্লেখ করেন, তার স্ত্রীকে যখন জোর করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় তখন দুই ব্যক্তি তাকে গাড়িতে আ’টক করে রাখে। এর ঘণ্টাখানেক পর এমসি কলেজের ছাত্রাবাসের একটি কক্ষের সামনে থেকে নিজের স্ত্রীকে বি’ধ্বস্ত অবস্থায় উ’দ্ধার করেন স্বামী।

পরে রাতেই ঐ তরুণীকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়। এমসি কলেজের হোস্টেলের পাশের আবাসিক এলাকার এক বাসিন্দা জানান রাতে বেশ কিছুক্ষণ ছাত্রাবাসের ভেতর থেকে চিৎ’কার চেঁচা’মেচির শব্দ শুনতে পাচ্ছিলেন তিনি। পরে একপর্যায়ে নারী ক’ন্ঠের চিৎ’কার শুনতে পাওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যে স্থানীয় আরো কয়েকজনকে নিয়ে ছাত্রাবাস এলাকার ভেতরে প্রবেশ করেন।

সেসময় হোস্টেলের পাশের স্টাফ কোয়ার্টার থেকে কর্মচারীরা জড়ো হলে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে ঘটনা সম্পর্কে জানতে পারেন তারা। ঐ ঘটনার পর থেকে সিলেটে প্রতি’বাদ ও বিক্ষো’ভ প্রদর্শন করছে সাধারণ মানুষ।

সূত্র: বিবিসি বাংলা।