সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়ে যাচ্ছিলো ‘ধর্ষক’ সাইফুর

সিলেটের মুরারিচাঁদ (এমসি) কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে আ’টকে রেখে নববধূকে গণধ’র্ষণ মা’মলার প্রধান আ’সামি ছাত্রলীগ নেতা সাইফুর রহমান (২৮) গ্রে’ফতার করেছে পুলিশ।জানা যায়, ঘটনার পর পরই সে ছাতক চলে আসে। ভারতে পা’লানোর সুযোগ খুজতে থাকে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। আজ রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে সুনামগঞ্জের ছাতক শহর সংল’গ্ন নোয়ারাই ইউনিয়নের নোয়ারাই খেয়াঘাট থেকে ছাতক থা’না পু’লিশ তাকে গ্রে’ফতার করে।

ছাতক থা’নার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, গো’পন ত’থ্যের ভিত্তিতে রোববার সকালে ছাতক খেয়াঘাট সংল’গ্ন এলাকা দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় থা’নার এসআই হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সাইফুর রহমানকে গ্রে’ফতার করে। পরে শাহপরাণ থা’না পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়। ধর্ষ’ক সাইফুর রহমান সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার চান্দাই নিবাসী তাহিদ মিয়ার পুত্র। বর্তমানে (৫ম ব্লক, এমসি কলেজ হোস্টেল সুপারের বাংলো) শাহপরান সিলেটের বাসিন্দা।

এদিকে ধ’র্ষণের ঘটনার পর শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) মধ্যরাতে ছাত্রাবাসে তার কক্ষে অ’ভিযান চালিয়ে আ’গ্নেয়া’স্ত্রসহ কয়েকটি ধা’রালো অ’স্ত্র উ’দ্ধার করে পুলিশ। সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের শাহপরাণ (রহ.) থা’নার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাইয়ুম চৌধুরী জানান, সাইফুরের রুম থেকে অ’স্ত্র উ’দ্ধা’রের ঘটনায় মা’মলাটি রেকর্ড করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় স্বামীর সঙ্গে এমসি কলেজে ঘুরতে এসেছিলেন ওই তরুণী। এ সময় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে মহানগর ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী তাদের জোরপূ’র্বক কলেজের ছাত্রবাসে নিয়ে যায়। সেখানে একটি কক্ষে স্বামীকে আ’টকে রেখে তরুণীকে গণধ’র্ষণ করে তারা। রাত ১১টায় শাহপরাণ থা’না পুলিশ তাদের উ’দ্ধার করে। বর্তমানে ওই তরুণী সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে চি’কিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ঘটনায় ছয় জনের নামোল্লেখসহ অ’জ্ঞাত আরও তিনজনকে আসা’মি করে শনিবার সকালে সিলেট মহানগর পুলিশের শাহপরান থা’নায় মা’মলা করেছিলেন ধর্ষ’ণের শিকার গৃহবধূর স্বামী। মাম’লার আসা’মিরা হলেন- এম সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, তারেকুল ইসলাম তারেক, অর্জুন লঙ্কর, রবিউল হাসান ও মাহফুজুর রহমান মাসুম। এদের মধ্যে চারজন ওই কলেজের শিক্ষার্থী। এছাড়া আরও তিন জনকে অজ্ঞা’ত আসা’মি হিসেবে দেখানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে গণধ’র্ষণের ঘটনায় প্রধান আ’সামি সাইফুর ছাড়াও মা’মলার চার নম্বর আ’সামি অর্জুন লস্করকেও গ্রে’ফতার করেছে পু’লিশ। এনিয়ে আলোচিত এই গণধ’র্ষণ মা’মলার দুই আ’সামি গ্রে’ফতার হলেন।-সময়ের কণ্ঠস্বর