নারীর প্রতি খারাপ চোখে তাকানোর মতো কর্মী ছাত্রলীগে নেই : লেখক ভট্টাচার্য

বাংলাদেশে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেছেন, বাংলাদেশের নারী সমাজ, কোনো নারী শিক্ষার্থী বা কোনো নারী সহযো’দ্ধার প্রতি কটা’ক্ষ করা কিংবা খারাপ চোখে তাকানোর মতো কোনো কর্মী ছাত্রলীগে নেই। বরং বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সবসময় ধ’র্ষণের বিরু’দ্ধে সোচ্চার।

তিনি আরও বলেন, এমসি কলেজ প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতৃত্বেই ধ’র্ষণের প্রতিবা’দে প্রথম আ’ন্দো’লন হয়েছে। তারা এখনও আ’ন্দো’লন অব্যাহত রেখেছে। যারা প্রতি’বাদী আ’ন্দো’লন করছে, তারাই মূলত ছাত্রলীগের কর্মী; যারা ধর্ষ’ণ করে তারা ছাত্রলী’গের কেউ নয়।

রোববার বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে এক বি’ক্ষো’ভ সমা’বেশে এসব কথা বলেন লেখক ভট্টাচার্য। বি’ক্ষো’ভ সমাবেশটি আয়োজন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। সেখানে ঢাবি ছাত্রীকে ধ’র্ষণ, নিপী’ড়ন ও ভয়ভী’তি প্রদর্শনের সঙ্গে সম্পৃক্ত অপ’রাধীদের এবং সিলেটের এমসি কলেজ, খাগড়াছড়ি ও সাভারে ধ’র্ষণের সঙ্গে জ’ড়িত সবার গ্রে’ফতার ও বিচার নিশ্চিতের দাবি জানানো হয়।

সমা’বেশে বক্তব্যকালে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ সব ধর্ষ’ণের বিচার চান। এ সময় ঢাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরকে উদ্দেশ লেখক ভট্টাচার্য বলেন, বাংলাদেশের আ’ইন ও বিচা’র ব্যবস্থা এতটা সস্তা নয় যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্রীকে ধ’র্ষণের পর আ’ন্দো’লন করে আপনারা পার পেয়ে যাবেন।

তিনি অভিযো’গ করে বলেন, ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোনো ধর্ষ’কের পক্ষে এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আ’ন্দো’লন হয়েছে। এ ন্য’ক্কারজনক ঘটনার প্রতি’বাদ জানাই। ধর্ষ’ণের ঘটনাকে রাজ’নীতির মোড়ক দিয়ে পার পাওয়া যাবে না।

সমা’বেশে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস আর সঞ্চালনা করেন ডাকসুর সাবেক এজিএস এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন।

সূত্র: যুগান্তর।