টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট দিয়ে ফিরবেন তামিম, মুশফিকরা

বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা সফর স্থগিত হওয়ার দিনে ঘরোয়া ক্রিকেট ফেরার ঘোষণা দিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সোমবার তিনি জানান, একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট দিয়ে ফিরবে ঘরোয়া ক্রিকেট। সেখানে যত বেশি সম্ভব ক্রিকেটারদের সুযোগ দেয়া হবে। শ্রীলঙ্কা সফরের জন্য চলছিল জাতীয় দলের স্কিল ট্রেনিং ক্যাম্প। তিনদিনের বিরতির পর পহেলা অক্টোবর থেকে আবার জৈব সুরক্ষা বলয়ে ১৫ দিনের ক্যাম্প শুরু হবে।

জাতীয় দলের ট্রেনিং শেষ হওয়ার পর শুরু হবে টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট। ধাপে ধাপে ফিরবে ঢাকা লিগ, জাতীয় লিগ ও বিসিএল। জাতীয় দল ১৫ দিনের ক্যাম্পে নিজেদের মধ্যে দুইটি দুইদিনের ম্যাচ এবং একটি তিনদিনের ম্যাচ খেলবে। মাঝে থাকবে বিরতি। প্রথম দুইদিনের ম্যাচটি শুরু হবে ২ অক্টোবর। সোমবার মিরপুরে নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘ক্যাম্প চলবে আরও ১৫ দিন। এরপরই আমরা ঘরোয়া ক্রিকেট শুরু করব। ঘরোয়া ক্রিকেটের দুটি ভাগ আছে।

যদি ৫-৬টি দল নিয়ে করি…৬টি দল হলে, ৯০ জন ক্রিকেটার। যত বেশি ক্রিকেটারকে রাখা যায়, তত ভালো। ওদেরকে নিয়ে যদি একটা টুর্নামেন্ট করতে পারি, কর্পোরেট লিগ হতে পারে বা বিসিবির দল বা যে কোনো কিছু।’ করোনা পরিস্থিতি ভালো না হওয়ায় তড়িঘড়ি করে কোনো আয়োজন করতে চায় না বোর্ড। ক্রিকেটারদের সর্বোচ্চ সুরক্ষা বলয়ে রাখবে দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিসিবি। এজন্য সঠিক পরিকল্পনা করে মাঠে খেলা ফেরার চিন্তা।

জানা গেছে, কর্পোরেট টুর্নামেন্টের জন্য সাতটি প্রতিষ্ঠান রাজি হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বেক্সিমকো, বসুন্ধরা, জেমকন গ্রুপের মতো বড় বড় প্রতিষ্ঠান। তাদের নিয়ে একটি টুর্নামেন্ট করার পরিকল্পনা। আবার ভিন্ন পরিকল্পনাও আছে বোর্ডের। নাজমুল হাসান বলেন, ‘এমনও হতে পারে, আমাদের জাতীয় দল, অনূর্ধ্ব-১৯ দল, এইচপি, ওদের নিয়ে তিন-চারটা দল করে ফেললাম। ওদের নিয়ে একটা টুর্নামেন্ট আয়োজন করলাম। বিসিবির স্প’ন্সরে, এটাও সম্ভব। এটা নিয়েই আজকে আলাপ হয়েছে।

দুটির একটি অবশ্যই করে ফেলব। যে টুর্নামেন্ট-ই হোক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট দিয়েই ফিরছে ঘরোয়া ক্রিকেট।’ গত মার্চের মাঝামাঝি দেশের সবচেয়ে বড় ও জমজমাট ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ শুরু হয়েছিল। কিন্তু করোনার কারণে এক রাউন্ডের পর লিগ অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়। প্রিমিয়ার লিগ আবার হবে এমন আভাস দিয়েছেন বোর্ড প্রধান।

‘আমাদের চেষ্টায় থাকবে স্থগিত হওয়া লিগ আয়োজন করার। আগামী বছরেরটা এর পরের বছর হবে। সবকিছু এখন আগাম বলাটা কঠিন। পরিস্থিতি কী হবে, সেটার উপর নির্ভর করছে সবকিছু।’– যোগ করেন তিনি।