দুই বন্ধু মিলে দুই বোনকে ধ’র্ষণ

নারায়ণগঞ্জে দুই বন্ধু মিলে দুই শিক্ষার্থীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধ’র্ষণ করেছে। অভি’যোগ পাওয়ার পর পুলিশ দুই শিক্ষার্থীকে উ’দ্ধার ও দুই লম্প’টকে গ্রে’ফতার করেছে। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ধ’র্ষণের শিকার দুই শিক্ষার্থী নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুন্নাহার ইয়াসমিমের আদা’লতে ২২ ধারায় জবানবন্দি দেন।

ধ’র্ষণের শিকার দুই শিক্ষার্থীর বয়স ১৩ ও ১৪ বছর হবে। তাদের একজন স্থানীয় একটি মাদরাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে আরেকজন স্কুলের ৭ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। তারা সম্পর্কে মামাতো ফুফাতো বোন। ধ’র্ষকরা হলেন- নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার ফুলহর এলাকার জয় মিয়ার ছেলে রিফাত (১৯) ও একই এলাকার রমিজ উদ্দিন রমু মিয়ার ছেলে রিফাদ (২০)।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার গোদনাইল এলাকার দুই বোনের সঙ্গে গত দুইমাস আগে কোনো এক বিয়ের অনুষ্ঠানে লম্পদের সাথে তাদের পরিচয় হয়। সেই থেকে তার মধ্যে ফোনের মাধ্যমে যোগা’যোগ অব্যাহত ছিল। এরপর মুঠোফোনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। তারা ২১ সেপ্টেম্বর বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ২ বোনকে নবীগঞ্জে আসতে বলে।

পরে বন্দর নবীগঞ্জের একটি বাড়িতে ঘরভাড়া নিয়ে উঠেন। সেখানেই দুই বন্ধু মিলে দুই বোনকে ধ’র্ষণ করে। এরপর আরও দু’দিন সেখানে বিয়ে ছাড়াই অবস্থান করে। এরপর জয় মিয়ার ছেলে রিফাতের মা হাওয়া বেগমের কাঁচপুরের বাড়িতে রেখে আসে দুই শিক্ষার্থীকে। সেখানে রেখে ধ’র্ষকরা পালিয়ে যায়। মেয়ের পরিবারের লোকজন দুই লম্পট রিফাত ও রিফাদকে ফোন করে তাদের তথ্য জানতে চাইলে তারা কোনো তথ্য না দিয়ে নানাভাবে টা’লবাহানা করে।

২৮ সেপ্টেম্বর রাতে থা’নায় অভি’যোগ দায়ের করলে পুলিশ রাতেই নবীগঞ্জ এলাকায় অভিযা’ন চালিয়ে দুই লম্পটকে গ্রেফ’তার করে। পরে তাদের দেয়া তথ্যমতে দুই বোনকে উ’দ্ধার করা হয়। এ ব্যাপারে বন্দর থানার অফিসার ইনর্চাজ ফখরুদ্দীন ভূইয়া জানান, দুই শিক্ষার্থী ধর্ষ’ণের ঘটনায় থানায় পৃথক দুইটি মাম’লা দায়ের করা হয়েছে। আর দুই ধর্ষ’ককে গ্রে’ফতার করে আদা’লতে পাঠানো হয়েছে।

সূত্র: জাগোনিউজ২৪।