‘মিন্নির মতো মেয়ে যেন আর কারো ঘরে না জন্মায়’

রিফাত শরীফের বাবা আ. হালিম দুলাল শরীফ বলেছেন, মিন্নির মতো মেয়ে যেন আর কারো ঘরে না জন্মায়। এ মেয়েটার জন্য দুইটা ছেলের জীবন অকালে ঝরে গেছে আরও ২৪টা ছেলের জীবন ঝুলছে। আমি এই মেয়ের যাব’জ্জীবন কারাদ’ণ্ড শা’স্তি প্রত্যাশা করি।বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বরগুনা জেলা জজ আদা’লত চত্ত্বরে তিনি এসব কথা বলেন।

আ. হালিম দুলাল বলেন, এ ঘটনায় যারা জ’ড়িত তাদের সর্বোচ্চ শা’স্তি হোক আর যারা জড়িত না তারা মুক্তি পাক। তবে মিন্নির মতো মেয়ে যেন আর কারো ঘরে না জন্মায়। আমি প্রত্যাশা করি, মিন্নির যাব’জ্জীবন কা’রাদ’ণ্ড হোক। আমরা যেমন রিফাতের কব’রের সামনে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকি। তার বাবা-মাও যেন কারা’গারের গেটের সামনে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে।

উল্লেখ্য, বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হ’ত্যা মা’মলার প্রা’প্তবয়স্ক ১০ আসা’মির রায় ঘোষণা হবে আজ (৩০ সেপ্টেম্বর)। বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আ’দালতের বিচা’রক আছাদুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করবেন। এ মা’মলার অপ্রা’প্তবয়স্ক অন্য ১৪ আসামি’র বিরু’দ্ধেও সাক্ষ্যগ্রহণ ও যুক্তিত’র্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবারই বরগুনা নারী ও শিশু আদা’লতে এই সাক্ষ্যগ্রহণ ও যু’ক্তিতর্ক শেষ হয়।

আ’দালত সূত্রে জানা গেছে, রিফাত হ’ত্যা মা’মলার প্রা’প্তবয়স্ক ১০ আ’সামির বিরু’দ্ধে ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। সব আসা’মির পক্ষে-বিপক্ষে আদা’লতে যু’ক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট আই’নজীবীরা। সব শেষে নি’হত রিফাত শরীফের স্ত্রী, ১ নম্বর সাক্ষী থেকে ৭ নম্বর আ’সামি হওয়া আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির পক্ষে-বিপ’ক্ষে যু’ক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের দিন ধার্য করেন আদা’লত।

চা’র্জশিটভুক্ত প্রা’প্তবয়স্ক আসা’মি মো. মুসা এখনো পলা’তক। বাকি আসা’মিরা হলেন রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হূদয় ওরফে টিকটক হূদয়, মো. হাসান, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর ও কামরুল ইসলাম সাইমুন। এই ১০ আসা’মির মধ্যে মিন্নি জা’মিনে আছেন। পলা’তক মুসা ছাড়া বাকিরা আছেন কারাগা’রে।