সিলেটে কিশোরী ধ’র্ষণের অভি’যোগে ইমাম গ্রে’প্তার

সিলেটের বিশ্বনাথে এবার ১৬ বছরের কিশো’রীকে ধর্ষ’ণের অভি’যোগে পাওয়া গেছে রুহুল আমিন শাহা (৩৫) নামে মসজিদের এক ইমামের বিরু’দ্ধে। গত মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার সাতজন এজাহারভুক্ত ও ৪-৫ জনকে অ’জ্ঞাতনামা আ’সামি করে মা’মলা দায়ের করেছেন কিশোরীর বড় বোন। পরে অভিযুক্ত রহুল আমিনের সহকর্মী মুয়াজ্জিনসহ ২ জনকে গ্রে’প্তার করেছে পুলিশ।

অভিযুক্ত রুহুল আমিন শাহা ইসলামপুর নতুন জামে মসজিদের ইমাম ও সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার চন্দ্রপুর গ্রামের আফাজ উদ্দিনের ছেলে। ঘটনার পর থেকেই তিনি আ’ত্মগো’পনে রয়েছেন। মা’মলা সূত্রে জানা গেছে, নির্যা’তিতা কিশোরী প্রায় দুই বছর ধরে ইসলামপুরের আবদুশ শহীদের বাড়িতে গৃহপরিচারিকার কাজ করে আসছে। ওই বাড়িতে লজিং থাকেন ইসলামপুর নতুন জামে মসজিদের ইমাম রুহুল আমিন শাহা।

গত মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে ওই কিশোরীকে একা পেয়ে ধ’র্ষণ করেন রহুল আমিন। তার চিৎ’কার শুনে স্থানীয় লোকজন কিশোরীকে ইমামের রুম থেকে উ’দ্ধার করেন। ইমাম রুহুল আমিন শাহা ওই কিশোরীকে এর আগেও একাধিকবার ধ’র্ষণ করেন বলে জানা গেছে।

এদিকে, কিশোরী ধ’র্ষণের অভি’যোগ পেয়ে ইসলামপুর নতুন জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামের আরিফ উদ্দিনের ছেলে মাহফুজ বিন আরিফ (১৯) ও বিশ্বনাথ উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের মখদ্দছ আলীকে (৬৩) বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে আ’টক করে থা’না পুলিশ। পরে তাদের ওই ঘটনায় দায়ের করা মাম’লায় গ্রে’প্তার দেখানো হয়।

বিশ্বনাথ থা’নার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম মূসা জানান, ধর্ষ’ণের ঘটনায় গ্রে’প্তার হওয়া দুই আ’সামিকে বৃহস্পতিবার সিলেটের আ’দালতে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনার মূল হোতাসহ অন্য আ’সামিদের গ্রে’প্তারে চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

সূত্র: নিউজ২৪।