শসার স্বাস্থ্য উপকারিতা

সালাদ হিসেবে শসা বেশ জনপ্রিয়। এটি শুধু শরীর ঠান্ডা রাখে না; এর রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। শসায় রয়েছে ভিটামিন কে, সি, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরা’স, রাইবোফ্লাভিন, বি সিক্স, ফোলে’ট, আয়’রন, ক্যাল’সিয়াম, জিংক প্রভৃতি। শরীরে পানির ভারসাম্য বজায় রাখতেও এর জুড়ি নেই। এ ছাড়া খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমানোর পাশাপাশি ত্বকের স্বাস্থ্য রক্ষাতেও উপকারী ভূমিকা পালন করে।

১০০ গ্রাম শসাতে থাকে ১৩ ক্যালরি। শসা খাওয়ার উপকারিতা একবার দেখে নেওয়া যাক।

১. কথায় বলে ডায়াবেটিস থেকে ডায়েরিয়া সকলের জন্যই শসা অপরিহার্য। প্রচণ্ড গরমে দেহের ওয়াটার ইলেক্ট্রোলাইটৈর ভার’সাম্য বজায় রাখে শসা তার ফলে দেহকে রিফ্রেশ রাখতে বলা চলে শসার সেভাবে কোনো বিকল্প নেই।

২. শসার মধ্যে ৯৬ শতাংশই পানি থাকে। যা কোলনের স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে অত্যন্ত ভালো। কো’ষ্ঠকা’ঠিন্য দূর করে নিয়মিত পেট পরিষ্কার রাখতে এর জুড়ি নেই।

৩. বদ হজম, অ্যাসিডিটি, অরুচি, গ্যাস্ট্রাইটিস লি’ভার এবং প্যানক্রিয়াসের সমস্যা থাকলে শসা খাওয়া উচিত।

৪. আর্থারাইটিস হার্টের রোগ অস্টিওপোরেসিস প্রতিরোধে শসা ভালো কাজ করে।

৫. বয়স্কদের মধ্যে অ্যালঝাইমার্স ও অন্যান্য নিউরোলজিক্যাল রোগ-প্রতি’রোধে সাহায্য করে শসায় থাকা ফিসটি’ন নামক এক ধরনের আন্টি ইনফ্লামেটরি যৌগ।

৬. এছাড়া কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ ও অন্যান্য প্রদাহজনিত অসুস্থতার ঝুঁকি কমিয়ে দিতে পারে অতি পরিচিত সহজলভ্য এই ফলটি।

সূত্র : দেশ রূপান্তর