সুবহানাল্লাহ! ১০০ বছর আগে যেমনটা ছিল আল্লাহর ঘর পবিত্র কাবা শরীফ

কাবা শরিফের গেলাফের ইতিহাস স্বয়ং কাবার ইতিহাস থেকে আলাদা নয়। কাবার গিলাফের গুরুত্ব,মুসলিমদের নিকট তার পবিত্রতা ও উচ্চ মর্যাদা প্রকাশিত।

কাবার গিলাফ : এক ধরনের বিশেষ কাপড়ে পবিত্র কাবা শরিফকে আবৃত করে রাখা হয়। একে আমরা বলি গিলাফ এবং আরবরা বলে কিসওয়া। হজের কয়েকদিন আগে কাবার নিচের অংশ থেকে গিলাফ কিছুটা উপরে তুলে দেয়া হয় যাতে কাবা শরিফের বাইরের অংশ দেখা বা ধরা যায়। গিলাফের ইতিহাস কাবা শরিফের ইতিহাস থেকে শুরু হয়েছে।

জানা যায়, তুব্বা আল হোমায়রি প্রথমে মোটা কাপড় দিয়ে গিলাফ তৈরির প্রচলন শুরু করেন। ইসলাম পূর্ব সময়ে অনেকে কাবা শরিফের গায়ে গিলাফ পরিয়েছেন, কারণ তারা এটিকে ওয়াজিব মনে করতেন। তখন একটার উপর আরেকটা গিলাফ পরানো হত। গিলাফগুলো ভারী বা পুরাতন হয়ে গেলে সরিয়ে ফেলা হত। গিলাফের উপর গিলাফ পরানোর ফলে ওজন বেড়ে কাবা শরিফের দেয়াল ভেঙে যাওয়ার আশংকা সৃষ্টি হলে ১৬০ হিজরিতে খলিফা আল মাহদী কাবা শরিফের গায়ে একই সময়ে একটার বেশি গিলাফ পরানো নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন। আব্বাসী খলিফা আল মামুনের সময়ে কাবা শরিফের গায়ে তিনবার গিলাফ পরানো হত।

প্রথমবার ৮ জিলহজ লাল সিল্কের গিলাফ, দ্বিতীয়বার ১ রজব মিসরীয় সাদা কাবাতি কাপড়ের গিলাফ এবং তৃতীয়বার ২৯ রমজান সিল্কের তৈরি গিলাফ লাগানো হত। আব্বাসীয় খলিফ আল নাসির প্রথমে কাবা শরিফে সবুজ ও পরে কালো রঙের গিলাফ পরান। সেখান থেকে আজ পর্যন্ত কাবা শরিফে কালো রঙের গিলাফ লাগানো হচ্ছে। ৭৫১ হিজরিতে মিসরের বাদশাহ ইসমাইল বিন নাসের বিন কলাউন কাবা শরিফের গিলাফ তৈরির জন্য একটি বিশেষ ওয়াকফ ঘোষণা করেন। এই ওয়াকফ থেকে প্রতি বছর খানায়ে কাবার জন্য বাইরের একটি কালো গিলাফ এবং একটি অভ্যন্তরীণ লাল গিলাফ তৈরি করা হত।

এখন কাবা শরিফের দরজা ও বাইরের গিলাফ দুটোই মজবুত রেশমি কাপড় দিয়ে তৈরি করা হয়। গিলাফের মোট ৫টি টুকরো তৈরি করা হয়। চারটি টুকরো চারদিকে এবং বাকি টুকরোটি দরজায় লাগানো হয়। টুকরোগুলো পরস্পর সেলাই করা থাকে। বর্তমানে প্রতি বছর ৯ জিলহজ কাবা শরিফের গায়ে পরানো হয় নতুন গিলাফ। নতুন গিলাফ পরানোর সময়ে পুরাতন গিলাফটি সরিয়ে ফেলা হয়। পরে পুরাতন গিলাফটি কেটে মুসলিম দেশের রাষ্ট্র প্রধানদের উপহার দেয়া হয়। প্রাকৃতিকভাবে উৎপন্ন রেশম দিয়ে তৈরি করা হয় কাবার গিলাফ। রেশমকে রং দিয়ে কালো করা হয়।

পরে গিলাফে বিভিন্ন দোয়ার নকশা আঁকা হয়। গিলাফের উচ্চতা ১৪ মিটার। উপরের তৃতীয়াংশে ৯৫ সেন্টিমিটার চওড়া বন্ধনীতে কোরআনের আয়াত লেখা। বন্ধনীতে ইসলামি করুকার্যখচিত একটি ফ্রেম থাকে। বন্ধনীটি সোনার প্রলেপ দেয়া রুপালি তারের মাধ্যমে এমব্রয়ডারি করা হয়। এই বন্ধনীটি কাবা শরিফের চারধারে পরিবেষ্টিত থাকে। ৪৭ মিটার লম্বা বন্ধনীটি ১৬ টুকরায় বিভক্ত থাকে।

বন্ধনীটির নিচে প্রতি কোনায় সূরা ইখলাস, নিচে পৃথক পৃথক ফ্রেমে লেখা হয় কোরআনের ছয়টি আয়াত। এতে এমব্র্রডারি করে উপরে সোনা ও রুপার চিকন তার লাগানো হয়। এছাড়া গিলাফে ১১টি নকশা করা মোমবাতির প্রতিকৃতি বসানো হয়। এগুলো কাবা শরিফের চার কোণে লাগানো হয়। খানায়ে কাবার দরজার পর্দাটিকে বলা হয় বোরকা। এটাও কালো রেশম কাপড় দিয়ে তৈরি। এর উচ্চতা সাড়ে সাত মিটার ও প্রস্থ চার মিটার। এতে ইসলামি নকশা ও কোরআনের আয়াত লেখা থাকে।এ লেখাগুলোও সোনা ও রুপার চিকন তার দিয়ে এমব্রয়ডারি করা হয়। কাবার গিলাফের প্রতিটি কাপড়ের জন্য প্রয়োজন হয় ৬৭০ কেজি রেশম, ১৫০ কেজি সোনা ও রুপার চিকন তার। ৪৭ থান সিল্কের কাপড় দিয়ে তৈরি করা হয় এই গিলাফ। যার মোট আয়তন ৬৫৮ বর্গ মিটার। প্রতিটি থান এক মিটার লম্বা ও ৯৫ সেন্টিমিটার চওড়া। একটা আরেকটার সাথে সেলাই করা থাকে। প্রতিবছর দুটি করে গিলাফ তৈরি করা হয়। একটি মূল এবং অপরটি সতর্কতার জন্য তৈরি করে রাখা হয়।

একটি গিলাফ হাতে তৈরি করা হয়, যেটা তৈরিতে সময় লাগে আট-নয় মাস। অন্যটি মেশিনে মাত্র এক মাসে তৈরি করা হয়। গিলাফ তৈরি করার পর তা কাবা শরিফের চাবির রক্ষক বনি শাইবা গোত্রের মনোনীত সেবকের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরে সবার সহযোগিতায় গিলাফ কাবা শরিফের গায়ে চড়ানো হয়। কাবা শরিফের গিলাফ তৈরির কারখানাটি মক্কার উম্মুল জুদে অবস্থিত।

এই কারখানাটি ৬টি অংশে বিভক্ত, যথা : বেল্ট, হস্তশিল্প, যান্ত্রিক, ছাপা, রং এবং অভ্যন্তরীণ পর্দা বিভাগ। এই কারখানায় বর্তমানে ২৫০ জনের বেশি কর্মচারী নিয়োজিত আছেন।

রাসুল (সা.)এর পূর্বে কাবার গিলাফ : ইমাম মুহাম্মাদ বিন ইসহাক বলেন,‘একাধিক আলেমের কথা থেকে জানতে পারি যে সর্বপ্রথম “তুব্বা” আসাদ আল-হেমইয়ারি কাবার গিলাফ লাগান। তিনি স্বপ্নে দেখেন যে তিনি কাবা ঘরের গিলাফ লাগাচ্ছেন।সেই জন্য তিনি চামড়ার গিলাফ চড়ান। এর পরও তাকে স্বপ্নে আরও গিলাফ লাগানোর কথা বলা হচ্ছে। তাই তিনি ইয়েমেনের তৈরি লাল কাপড়ের গিলাফ লাগান’[আখবারে মক্কা-আযরুকী]। এরপর জাহেলি যুগে অনেকে নিজ নিজ যুগে গিলাফ লাগিয়েছেন। কারণ এটিকে তারা দ্বীনের অপরিহার্য কর্ম মনে করত; যে যখন ইচ্ছা করত তখন যে কোন প্রকারের গিলাফ লাগাতে পারত। (তৎকালীন সমহ ও প্রকারের কোন শর্ত ছিল না)। কাবায় হরেক রকম গিলাফ লাগান হত। যেমনঃ চামড়ার, মাআফির (ইয়েমেনের হামদান গ্রামের তৈরি কৃত কাপড়ের গিলাফ), ইয়েমেনের তৈরি লাল পাড়ের গিলাফ, পাতলা ও হালকা কাপড়ের গিলাফ এবং ইয়েমেনের কারুকাজ করা কাপড়ের গিলাফ।

তখন কাবায় গেলাফের উপর গিলাফ লাগান হত। যখন বেশী ভারী হয়ে যেত অথবা কোন গিলাফ পুরাতন হয়ে যেত তখন সেটিকে তুলে নিয়ে বরকত হাসিলের জন্য বণ্টন করা হত অথবা মাটিতে দাফন করা হত। জাহেলি যুগে কুরাইশরা আপোষে সহযোগিতার মাধ্যমে গিলাফ তৈরি করত। আর্থিক অবস্থার প্রেক্ষিতে প্রতি গোত্রের টাকার পরিমান নির্ধারণ করা হত। ‘কুসসীর’ যুগেও এই পদ্ধতি চালু ছিল। তবে যখন রাবীআ ‘মুগীরা বিন মাখযুমীর যুগ আসে তখন তিনি ব্যবসার উদ্দেশ্যে ইয়েমেন যাওয়া আসা করতেন। তিনি অতি ধনী ছিলেন। তিনি ঘোষণা করেন আমি এক বছর একাই গিলাফ দিব। আর এক বছর কুরাইশরা সকলে মিলে দিবে। তার মৃত্যুকাল পর্যন্ত একাই এই কাজ করতে থাকেন।

তিনি ইয়েমেনের জানাদ শহর থেকে সুন্দর সুন্দর কাপড় আনতেন এবং গিলাফ তৈরি করে লাগাতেন। কুরাইশরা তার উপাধি দেয় ‘আদল’ কারণ তিনি একাই সমস্ত কুরাইশদের সমান কাজ করেছেন। তার সন্তানদের উপাধি দেয় ‘বানু আদল’। আরবী ভাষায় ‘আদল’ এর অরথ সমতুল্য। কাবায় সর্বপ্রথম রেশমের গিলাফ লাগান একজন আরব মহিলা, যিনি ছিলেন আব্বাস (রাঃ) এর মা ‘নুতাইলা বিনতে জানাব’।

ইসলামী যুগে কাবার গিলাফ : রাসুল (সা.) ও তাঁর সাহাবাগন মক্কা বিজয়ের পূর্বে কাবায় গিলাফ চড়াননি। কেননা কুফফাররা এ কাজে অনুমতি দিত না। মক্কা বিজয়ের পরও রাসুল (সা.) কাবার গিলাফ পরিবর্তন করেননি। তবে জনৈক মহিলা কাবায় ধুপ দিতে গেলে তাতে (গেলাফে) আগুন লেগে যায় এবং পুড়ে যায়। তারপর রাসুল (সা.) ইয়েমেনী কাপড়ের গিলাফ চড়ান। এরপর আবু বকর (রাঃ), উমর (রাঃ), এবং উসমান (রাঃ) “কিবাতী” কাপড়ের গিলাফ চড়ান।একথা প্রমানিত আছে যে, মুআবিয়া বিন আবী সুফিয়ান বছরে দু’বার কাবায় গিলাফ চড়াতেন। আশুরার দিনে রেশমের এবং রমজানের শেষে কিবতী কাপড়ের গিলাফ লাগাতেন। এরপর ইয়াযীদ বিন মু’আবিয়া, ইবনে যুবায়ের আব্দুল্ল মালেক বিন মারওয়ান রেশমের গিলাফ চড়িয়েছেন।কাবায় প্রতি বছর দুটি গিলাফ চড়ানো হতঃ একটি রেশমের অপরতি কিবাতী কাপড়ের।

রেশমি গেলাফের উপরের অংশ (যাকে কাসীস বলা হয়)জুলহিজ্জা মাসের ৮ তারিখে চড়ানো হত হাজীদের ফিরে যাওয়ার পর। যাতে তাদের হাত লেগে তা নষ্ট না হয়। রেশমের গিলাফ রামাদানের ২৭ তারিখ পর্যন্ত থাকতো এবং ঈদুল ফিতরের জন্য কিবাতী কাপড়ের গিলাফ চড়ানো হত। বাদশাহ মামুনের যুগে কাবাকে তিনটি গিলাফ পড়ানো হত। জুলহিজ্জার ৮ তারিখে লাল রেশমি গিলাফ, রজবের প্রথম তারিখে কিবাতী এবং রামাদানের ২৭ তারিখে শ্বেত রেশমি গিলাফ। বাদশাহ মামুন যখন জানতে পারেন যে, সাদা রেশমি গেলাম হজ্জ্বের মৌসুমে নষ্ট হয়ে যাবে তখন আরও একটি সাদা গেলাফের ব্যবস্থা করেন। এরপর নাসের আব্বাসী সবুজ রঙের গিলাফ তারপর কালো রঙের গিলাফ চড়ান। সেই সময় থেকে আজও কালো গিলাফ চড়ানো হচ্ছে। আব্বাসী খেলাফত পতনের পর ৬৫৯ হিজরিতে সর্বপ্রথম ইয়েমেনী বাদশাহ ‘মুজাফফর’ কাবা ঘরের গিলাফ লাগান।

তিনি বেশ কয়েক বছর মিশরি বাদশাহর সঙ্গে পালাক্রমে গিলাফ চড়ানোর কাজ চালু রাখেন। ৬৬১ হিজরিতে আব্বাসীদের পর যে মিশরি শাসক সর্বপ্রথম গিলাফ চড়ানোর চেষ্টা করেন তিনি হচ্ছেন বাদশাহ যাহের বাইবেরাস বন্দুকধারী। ৭৫১ হিজরিতে মিশরের বাদশাহ ইসমাইল বিন নাসের বিন মুহাম্মাদ বিন কালাউন কাবার গেলাফের জন্য বিশেষ ওয়াকফের ব্যবস্থা করেন। তিনি কাবার জন্য প্রতি বছর কালো গিলাফ ও প্রতি পাঁচ বছর পর মদীনায় রাসুল (সা.) এর রওজার জন্য সবুজ রঙের গিলাফ পাঠাতেন। কিন্তু ‘আল-খাদীউবী মুহাম্মাদ আলী’ হিজরির ১৩ শতাব্দীতে ওয়াকফ বন্ধ করেন এব্বং সরকারী খরচে গিলাফ তৈরি হতে আরম্ভ করে।

তুর্কির উসমানী খলীফাগণ কাবার ভিতরের গিলাফ নিজেদের জন্য খাস করে নেন। ৮১০ হিজরিতে কাবার দরজার জন্য নকশাদার চাদর তৈরি করা হয়; যাকে ‘বুরকা’ বলা হয়। অতঃপর ৮১৬ – ৮১৮ হিজরি পর্যন্ত স্থগিত হয়ে যায় এবং পুনরায় ৮১৯ হিজরিতে আরম্ভ হয় যা আজও গেলাফের সাথে তৈরি করা হচ্ছে। সৌদি যুগের গিলাফ : বাদশাহ আব্দুল আযীয বিন আব্দুর রহমান আলে সউদ মক্কা মদীনায় অবস্থিত দু’হারামের খেদমতের খুব গুরুত্ব দেন। এই গুরুত্বের ভিত্তিতে বাদশাহ সউদ বিন আব্দুল আযীয পবিত্র মক্কায় কাবার গিলাফ তৈরি করার জন্য বিশেষ এক কারখানা তৈরি করার আদেশ দেন এবং তাতে গিলাফ তৈরির যাবতীয় সরঞ্জাম মওজুদ করা হয়। ১৩৮২ হিজরিতে বাদশাহ ফয়সাল নতুন করে কারখানা তৈরি করার আদেশ দেন, যাতে উত্তম ও মজবুত গিলাফ প্রস্তুত করা সম্ভব হয় এবং কাবা যেমন শানদার ঘর, তাঁর শানের উপযোগী হয়।

১৩৯৭ হিজরিতে মক্কায় ‘উম্মুল জুদ’ নামক স্থানে নতুন বিল্ডিং এর উদ্ভোধন করা হয়। তাতে গিলাফ তৈরির জন্য আধুনিক সরঞ্জাম সংযোজিত হয়। সেখানে মেশিনের সাহায্যে গিলাফ তৈরির ব্যবস্থার সাথে সাথে হাতের কাজের যে কারুকার্য তা বজায় রাখা হয়েছে। কারণ শিল্প জগতে তার উচ্চ মূল্য রয়েছে। এই কারখানা ধারাবাহিক ভাবে উন্নতি শাধনের পথে রয়েছে এবিং হাতের কারুকার্য বহাল রেখেছে,যাতে কাবাকে অতি আকর্ষণীও গিলাফ উপহার দেওয়া সম্ভব হয়।

লিখেছেন : মুফতি ইসা রুহুল্লাহ