ভারতীয়দের কোন ছাড় নয়, বললেন অস্ট্রেলিয়ান কিংবদন্তি অ্যালান বর্ডার

আগামী মাস থেকে শুরু হতে যাওয়া অস্ট্রেলিয়া-ভারত সিরিজের সূচী এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা হয়নি। তবে এরইমধ্যে ভারতীয়রা দাবি জানিয়েছে খসড়া সূচীতে পরিবর্তন আনতে। অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটের ঐতিহ্য অনুযায়ী বক্সিং ডে টেস্টের পরপরই নিউ ইয়ার টেস্ট খেলতে রাজি নয় ভারতীয়রা।

এ অবস্থায় সম্প্রচার প্রতিষ্ঠান চ্যানেল সেভেন এর তীব্র বিরোধিতা করেছে। কেবল তারাই নয়, সমালোচকদের দলে এবার যোগ দিয়েছেন অজি কিংবদন্তি অ্যালান বর্ডার। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের অবস্থানের তীব্র সমালোচনা করেছেন তিনি।

ঐতিহ্য অনুযায়ী, ২৫ ডিসেম্বর বড়দিনের পরদিন থেকে শুরু হয় বক্সিং ডে টেস্ট। এরপর ৩ জানুয়ারি শুরু হয় নিউ ইয়ার টেস্ট। যুগের পর যুগ এভাবেই খেলে এসেছে অস্ট্রেলিয়ানরা। তবে এই সূচিতে খেলতে রাজি নয় ভারতীয়রা। তাদের দাবি, ক্রিকেটারদেরকে পর্যাপ্ত বিরতি দিয়ে ৭ জানুয়ারি থেকে শুরু করা হোক সিডনি টেস্ট।

ভারতীয়দের এমন অবস্থানের কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে সাবেক অজি কিংবদন্তি অ্যালান বর্ডার বলেন, এটা কোনোভাবেই নেগোশিয়েট করার বিষয় নয়। যদি বিশ্বব্যাপী চলমান ভাইরাসের কারণে ম্যাচ পেছানোর কথা হতো, তাহলেও বিষয়টি ভাবা যেত। কিন্তু শুধুমাত্র তাদের বিশ্রাম দরকার সেজন্যে বক্সিং ডে টেস্ট এবং নিউ ইয়ার টেস্ট পেছাতে হবে, এটা খুবই অযৌক্তিক দাবি। এটা ‘রাবিশ’ একটা দাবি।

সিরিজটি নিয়ে বর্ডারের এমন মাথাব্যথার কারণও অবশ্য আছে। কারণ ভারত আর অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার এই সিরিজটি পরিচিত বর্ডার-গাভাস্কার ট্রফি হিসেবে। তিনি বলেন, আমরা বছরের পর বছর ধরে এভাবে খেলে আসছি। ব্যাক টু ব্যাক ম্যাচ? এভাবেই তো ক্রিসমাস এবং নববর্ষে আমরা খেলছি! তাহলে এবার কেন নয়? ভারতীয়রা বিশ্রাম চায় সেজন্যে আমি ম্যাচটা পেছানোর পক্ষে নই কোনোভাবেই।

বর্ডার আরো বলেন, ভারতীয়রা আমাদের সঙ্গে মাইন্ডগেম খেলতে চায়। তারা মনে করে, ক্রিকেট বিশ্বের তারাই নিয়ন্ত্রক। যদি আর্থিক দিক থেকে ভাবে তাহলে ঠিক আছে। তবে সবসময়ই নিজেদেরকে প্রভাবশালী ভাবা ঠিক না। কিন্তু সূচির কথা যদি বলেন, আমি বলবো এটা শুধুই আমাদের ব্যাপার। এই তারিখগুলোতেই আমরা খেলবো এবং তাদেরকে আমাদের কথা মানতে হবে। আপনি অনেককিছু নিয়ে নেগোশিয়েট করতে পারেন কিন্তু এই তারিখগুলো আমাদের ঐতিহ্য। এসবে আমরা ছাড় দিবোনা।

কেবল তারিখ নিয়েই নয়, ভেন্যু নিয়েও আপত্তি জানিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড-বিসিসিআই। নিয়মানুযায়ী প্রতিবছর এই সিরিজের ১ম টেস্ট হয় ব্রিসবেনে। তবে ভারতীয়দের দাবির প্রেক্ষিতে এবার সেটিও পরিবর্তন করা হয়েছে। এমন সিদ্ধান্তেরও তীব্র সমালোচনা করেছেন বর্ডার।

তিনি বলেন, অনেক বছর ধরেই ব্রিসবেন টেস্ট হয় সিরিজের ১ম ম্যাচ। এভাবেই চলছে। এটা দারুণ একটা গ্রাউন্ড। এখানে আমাদের গ্রীষ্মের শুরুটা চমৎকার হয়। কিন্তু ভারতীয়রা ব্রিসবেনে ১ম টেস্ট খেলতে চায়না, এমনটা হতে পারেনা। এটা তাদের বলার মতো বিষয় না। আমাদের উচিত বলা যে, এই হচ্ছে ভেন্যু এবং এই হচ্ছে তারিখ, এরমধ্যেই তোমাদেরকে খেলতে হবে। কখন খেলা হবে, কোথায় খেলা হবে সেটা আমাদের বিষয়। এটা নিয়ে একচুল পরিমান ছাড় দেয়াও ঠিক হবেনা।

ভারতীয়দের দাবি অনুযায়ী ম্যাচ পেছানো হলে সিরিজটি শেষ হবে ১৯ জানুয়ারি। যেটি মূলত শেষ হয়ে যাওয়ার কথা আরো আগেই। ‌১৯ জানুয়ারি সিরিজটি শেষ করতে গেলে আরো বেশি ক্ষতির মুখে পড়তে হবে সম্প্রচার প্রতিষ্ঠান চ্যানেল সেভেনকে। কারণ ১৪ জানুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ান ওপেন। দেশটিতে ক্রিকেটের চেয়েও জনপ্রিয় এই টেনিস টুর্নামেন্ট শুরু হলে দর্শকরা মুখ ফিরিয়ে নিবে ক্রিকেট থেকে।

সবকিছু বিবেচনা করে এরইমধ্যে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছে ক্ষতিপূরণ দাবি করেছে চ্যানেল সেভেন।

সূত্র: সময় নিউজ।