দোকানে ডেকে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ! আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেপ্তার

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় এক স্কুলছাত্রীকে (১২) ধর্ষণের অভিযোগে আওয়ামী লীগের এক নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার ভাদাদিয়া এলাকা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তির নাম তমিজ উদ্দিন (৫০)। তিনি উপজেলার মতিগঞ্জ ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি। পুলিশ ও পরিবার সূত্র জানায়, ওই ছাত্রী উপজেলার একটি বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণিতে পড়ে। তার বাবা তমিজ উদ্দিনের ফার্নিচারের দোকানে কাজ করে।

গত ১ অক্টোবর মেয়েটি প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় তমিজ উদ্দিন তাকে ডেকে দোকানের ভেতরে নিয়ে ধর্ষণ করেন। বিষয়টি কাউকে বললে তাকে ও তার বাবাকে মেরে ফেলার হুমকিও দেন তিনি। ঘটনাটি তমিজের স্ত্রী দেখে ফেলে ওই ছাত্রীকে দ্রুত তাড়িয়ে দেয়। এ নিয়ে তমিজ ও তার স্ত্রীর মধ্যে বাগবিতণ্ডা হলে আশপাশের মানুষও বিষয়টি জানতে পারেন। ওই স্কুলছাত্রীর মা দাবি করেন, তমিজ উদ্দিন তার মেয়েকে কৌশলে দোকানের ভেতরে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে।

বিষয়টি তার মেয়ে বাড়িতে গিয়ে তাকে জানালেও তমিজ উদ্দিনের ভয়ে তারা এত দিন মামলা করতে সাহস পাননি। বৃহস্পতিবার রাতে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় তিনি থানায় গিয়ে মামলা করেছেন। এ ব্যাপারে মতিগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ আলম মিয়াজীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তমিজ উদ্দিন নিজে নিজে ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি দাবি করলেও ওই ওয়ার্ডে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কোনো অনুমোদিত কমিটি নেই।

সোনাগাজী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আবদুর রহিম সরকার বলেন, বৃহস্পতিবার রাতেই পুলিশ অভিযুক্ত তমিজ উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তমিজ উদ্দিন ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন। পুলিশ জানিয়েছে, আজ শুক্রবার ফেনী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ওই ছাত্রীর শারীরিক পরীক্ষা শেষে তাকে ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে নেওয়া হবে। একই সঙ্গে অভিযুক্ত তমিজ উদ্দিনকেও ফেনীর আদালতে হাজির করা হবে।

সূত্র: কালের কণ্ঠ অনলাইন।