এবারে প্রেসিডেন্টস কাপ হচ্ছে সেরা ক্রিকেটারদের নিয়ে

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের খেলা চলাকালীন করোনার হানায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল দেশের ক্রিকেটাঙ্গন। দীর্ঘ প্রায় সাত মাস পর আবার ফিরছে প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট। বিসিবির উদ্যোগে কাল থেকে মাঠে গড়াতে যাচ্ছে তিন দলের ওয়ানডে টুর্নামেন্ট ‘বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ’। শান্ত একাদশের বিপক্ষে মাহমুদউল্লাহ একাদশের ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে টুর্নামেন্টটি।

প্রতিযোগিতাটির মাহমুদউল্লাহ একাদশের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ মনে করছেন, তিন দলের এই ওয়ানডে টুর্নামেন্টটি বাংলাদেশের অন্য যেকোনো ঘরোয়া টুর্নামেন্টের চেয়ে বেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে। রিয়াদের চোখে বাংলাদেশের প্রমিজিং এবং সবচেয়ে অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের মিশেলে দারুণ প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ এক টুর্নামেন্ট হতে যাচ্ছে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ।

বাংলাদেশের ঘরোয়া ওয়ানডে টুর্নামেন্ট ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) মোট ১২টি দল প্রতিযোগিতা করে থাকে। জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের আন্তর্জাতিক সূচি থাকায় প্রায় সময় তারা সেই টুর্নামেন্টে যোগ দিতে পারে না। ফলে সেই টুর্নামেন্টে জাতীয় দলের কিছু ক্রিকেটারের পাশাপাশি সাবেক, তরুণ এমনকি গড়পড়তা মানের ক্রিকেটাররা খেলে থাকে। এমনকি জাতীয় ক্রিকেট লিগেও (এনসিএল) একই চিত্র। তবে বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপের জন্য দেশসেরা ৪৫ ক্রিকেটারকে বেছে নেওয়া হয়েছে।

জাতীয় দলের ২৭ ক্রিকেটারের পাশাপাশি এইচপি এবং অনূর্ধ্ব-১৯ দলের আরও ১৮ ক্রিকেটার খেলবেন প্রতিযোগিতাটিতে। যারা প্রত্যেকেই জাতীয় দলে জায়গা পাওয়ার দাবিদার। ফলে নিজেদের প্রমাণের বিষয়টি এই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ টুর্নামেন্টের মাধ্যমে সামনে চলে আসবে বলে জানিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ।

চ্যাম্পিয়ন হওয়ার প্রত্যয় জানিয়ে এই ক্রিকেটার বলেন, ‘আশা আছে টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হবার। তবে সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে, প্রতিযোগিতাটিতে আমাদের দেশের সবচেয়ে প্রমিজিং এবং অভিজ্ঞতার দিক দিয়ে যদি বলি, সব দিক দিয়েই সেরা খেলোয়াড়রাই খেলছে। আমাদের নিজেদের প্রমাণের জন্য এটি ভালো প্রতিযোগিতা।’

ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল পেয়েছেন বলে বিশ্বাস করছেন মাহমুদউল্লাহ একাদশের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। নিজ দল নিয়ে জাতীয় দলের এই তারকার ভাষ্য, ‘মাশাআল্লাহ, দল খুব ভালো হয়েছে। টপ অর্ডার টু লেট মিডল অর্ডার, স্পিনিং সাইড, পেস বোলিং ইউনিটও খুব ভালো হয়েছে। ওভারঅল আমার কাছে মনে হয়েছে বেশ গুছানো এবং ব্যালেন্সড দল।’

দীর্ঘদিন পর ক্রিকেটে ফিরতে পেরে দারুণ উচ্ছ্বসিত মাহমুদউল্লাহ আরও যোগ করেন, ‘দীর্ঘদিন অনুশীলন করায় নিজের মধ্যে সন্তুষ্টির বিষয় ছিল। তবে আমরা মাঠের মানুষ মাঠে ফিরতে পারায় ভালো লাগছে। প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট শুরু হওয়াতে দারুণ খুশি। কারণ দিনশেষে এটা আমাদের কাজ, আমাদের ভালোবাসার জায়গা।’

এমন টুর্নামেন্ট আয়োজনের জন্য বিসিবিকেও ধন্যবাদ জানিয়ে মাহমুদউল্লাহ আরও যোগ করেন, ‘এই টুর্নামেন্ট আয়োজন খুব ভালো উদ্যোগ। এ জন্য বিসিবিকে ধন্যবাদ। কেননা ক্রিকেটাররা প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে যত দ্রুত সম্ভব ফিরতে চাচ্ছিল। দারুণ একটা টুর্নামেন্ট হবে বলে আশা করছি। আমরা সবাই এই টুর্নামেন্টের জন্য মুখিয়ে এবং উদগ্রীব টুর্নামেন্টটির জন্য।’