অবশেষে নারীর পোশাক নিয়ে মন্তব্যের ভিডিও সরালেন অনন্ত জলিল

কয়কেদিন ধরে ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে উত্তাল দেশ। এরমধ্যেই ধর্ষণ ও নারীদের পোশাক নিয়ে এক ভিডিও বার্তা দিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছেন চিত্রনায়ক ও ব্যবসায়ী অনন্ত জলিল। পরে তিনি তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজ থেকে ভিডিওটি সরিয়ে নেন তিনি।

শনিবার তার ফেসবুক পেজে প্রকাশিত ওই ভিডিও বার্তায় তিনি ‘ভাই হিসেবে’ নারীদের ‘শালীন’ পোশাক পরার আহ্বান জানান। নারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তোমাদের অশালীন ড্রেসের কারণে তোমাদের ফিগারের দিকে তাকিয়ে বিভিন্নভাবে মন্তব্য করে এই বখাটে ছেলেরা এবং র‌্যাপ (রেপ) করার চিন্তা তাদের মাথায় আসে। এরপর পোশাক নিয়ে তার করা বক্তব্যের সমালোচনা করেন অনেকে। তার ভিডিওতেই কড়া ভাষায় তার বক্তব্যের সমালোচনা করেন অনেকে।

অনন্ত জলিল দেশের সকল মেয়ের উদ্দেশ্যে ‘ভাই’ হিসেবে কিছু কথা বলেন। বখাটেদের হাত থেকে বাঁচতে তিনি শরীর আচ্ছাদনের কথাও বলেন এসময়। নারীদের পাশ্চাত্য দেশের পোশাক ‘ফলো করে’ তা পরিধানে নিষেধ করেন। তিনি বলেন, এইসব ড্রেস-আপ দেখে চেহারার দিকে না তাকিয়ে বখাটেরা তোমার ফিগারের দিকে তাকায়, এরপর বিভিন্ন মন্তব্য করে এবং রেপ করার চিন্তা তাদের মাথায় আসে।

‘মডার্ন’ জামাকাপড়ের প্রসঙ্গ তুলে জলিল বলেন, তোমরা কি নিজেদের মডার্ন মনে করো? অ্যাঁ? এটা কি মডার্ন ড্রেস? না অশালীন ড্রেস। এটা মডার্ন ড্রেস হতে পারে না। মডার্ন ড্রেস হবে যেখানে ফেস দেখা যাবে যেটা আল্লাহতায়লা দিয়েছেন। কিন্তু যে বডিটা আছে সেখানে শালীনভাবে পোশাক পরতে হবে। নিজেকে পাশের একজন ভদ্রমেয়ের কাছে জিজ্ঞাসা করে দেখো, তোমাকে কত বাজে লাগে দেখতে।

নারীদের টিশার্ট পরার কারণে ‘ইজ্জত শেষ’ হয়ে যায় উল্লেখ করে অনন্ত এই ভিডিওতে আরো বলেন, ছেলেদের মতো একটা টিশার্ট পরে বের হয়ে যাও, মডার্ন মেয়ে তুমি! খুব মডার্ন! তারপর ইজ্জত শেষ করে আত্মহত্যা করো না হয় মানুষের সামনে মুখ দেখাতে পারো না, এটা কি মডার্ন? শালীন ড্রেস পরলে যারা বখাটে যাদের মাথায় ধর্ষণের চিন্তাভাবনা আছে তারা তোমার দিকে শ্রদ্ধার দিকে তাকাবে। এরপর চোখ নিচের দিকে নিয়ে নেবে।

‘ধর্ষকদের শিক্ষা দিলেন অনন্ত জলিল’ শিরোনামে ওই ভিডিওবার্তার শুরুতে অনন্ত জলিল ধর্ষকদের উদ্দেশে বলেন, তোমাদের সামনে তোমাদের স্ত্রী কন্যাকে যদি কেউ র‌্যাপ (রেপ) করে, তাহলে তোমার কেমন লাগবে? তুমি তো একটা অমানুষ, তোমার ভালোই লাগবে মনে হয় না? না হলে তো অন্যের মেয়েকে, অন্যের মা বোনকে র‌্যাপ (রেপ) করতে পারতে না। তোমার যে মনুষত্ব সেটা তো মরে গেছে।

ভিডিও বার্তার শেষ দিকে ধর্ষকদের মৃত্যুদণ্ড চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি জানান এই চলচ্চিত্র অভিনেতা। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমার আকুল আবেদন, আপনি আমাদের অভিভাবক। আপনাকেই শক্ত হাতে এসব অমানুষের মৃত্যুদণ্ডের আইন ও বাস্তবায়নের সুব্যবস্থা করতে হবে। কারণ আপনার দিকেই সবাই তাকিয়ে আছে, আপনি কখন নির্দেশনা দেবেন।

সূত্র: ইন্ডিপেন্ডেন্ট নিউজ।