‘বস’ ইজ ব্যাক! বিরাটদের জয়রথ থামিয়ে আইপিএলে জয়ে ফিরল কিংস ইলেভেন পঞ্জাব

শারজায় বস ইজ ব্যাক! সাত ম্যাচ ডাগ আউটে ছিলেন কুড়ি-কুড়ি ক্রিকেটের ক্যারিবিয়ান দৈত্য। শেষ দুটি ম্যাচ অবশ্য অসুস্থ ছিলেন বলে খেলেননি ইউনিভার্স বস। কিংস ইলেভেন পঞ্জাবও হেরেই চলেছিল। গেইল ফিরতেই যেন ‘উড়তা পঞ্জাব’! বিরাটদের জয়রথ থামিয়ে আইপিএলে জয়ে ফিরল কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। অঙ্কের বিচারে প্লে-অফে যাওয়ার আশা জিইয়ে রাখল প্রীতি জিন্টার দল।

সৌজন্যে ক্রিস গেইল ও কেএল রাহুলের দুরন্ত হাফ সেঞ্চুরি। টান টান ম্যাচে শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে জিতল কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। গেইল দলে তাতে কি! ব্যাঙ্গালোরের ১৭২ রানের টার্গেট তাড়া করতে রাহুল-মায়াঙ্ক ওপেনিং জুটিতে বদল আনেনি পঞ্জাব। ৭৮ রানের ওপেনিং পার্টনারশিপ। ৪৫ রানে মায়াঙ্ক আগরওয়াল ফিরতেই মাঠে নামলেন ক্রিস গেইল। প্রথম দিকে একেবারেই চেনা মেজাজে পাওয়া যায়নি তাঁকে।

তারপর ধীরে ধীরে খোলস ছেড়ে বেরিয়ে এলেন গেইল। শারজায় ক্যালিপসো ঝড় তুললেন। ৪৫ বলে ৫৩ রান করলেন গেইল। পাঁচটা ছক্কা আর একটা চারে সাজানো গেইলের ইনিংস। অন্যদিকে ৪৯ বলে ৬১ রানে অপরাজিত তাকলেন এবারের আইপিএলে কমলা টুপির মালিক কেএল রাহুল। কিন্তু শেষ ওভারে যুজবেন্দ্র চাহলের দুরন্ত বোলিং ম্যাচের রঙ অনেকটাই বদলে দেয়। ক্রিস গেইলের রান আউটে সমস্যায় পড়ে যায় কিংসরা। শেষ বলে নিকোলাস পুরাণ ছক্কা মেরে প্রীতির মুখে হাসি ফোটালেন।

আরসিবি-র জার্সিতে ২০০ তম ম্যাচ খেলতে নেমে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। শুরুটা ভালো করলেও নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট হারাতে থাকে ব্যাঙ্গালোর। একমাত্র বিরাট কোহলি সর্বোচ্চ ৪৮ রান করেন। শেষ দিকে ৮ বলে ২৫ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন ক্রিস মরিস।

শিবম দুবে ২৩ আর অ্যারোন ফিঞ্চ ২০ রান করেন। ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৭১ রান তোলে আরসিবি। ২টি করে উইকেট নেন পঞ্জাবের মহম্মদ শামি এবং মুরগান অশ্বিন।