শেষ ১০ বলে ৩৫ রান নিয়ে অবিশ্বাস্যভাবে ম্যাচ জিতলেন এবি ডি ভিলিয়ার্স

এটা শুধু এবি ডি ভিলিয়ার্স এর পক্ষেই সম্ভব। তিনি যা করতে পারেন তা হয়তো আর কোন ব্যাটসম্যান পারনই না। আজ আইপিএলের প্রথম ম্যাচে তার বিধ্বংসী ব্যাটিং এর কাছে হার মেনেছে রাজস্থান রয়েলস। ব্যাটিংয়ে নেমে তিনি খেলেছেন মাত্র ২২ টি বল। আর এই ২২ বলেই কপাল পুড়েছে রাজস্থান রয়েলসের।

তার কারণ এই ২২ বলে তিনি যে ঝড় তুলেছিলেন তাতেই তার নামের পাশ যোগ করেছেন ৫৫ রান। দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন। বাউন্ডারি মেরেছেন মাত্র ১টি। ছক্কা? এ জায়গাতেই তো সবচেয়ে বড় পার্থক্যটা গড়ে তুললেন। ৬টি ছক্কার মার এসেছে তার ব্যাট থেকে।

রাজস্থানের বোলাররা রীতিমত দিশেহারা হয়ে পড়েছিল তার বিধ্বংসী রূপের সামনে। এবি ডি ভিলিয়ার্সের ঝড়ে রাজস্থান রয়্যালসকে ৭ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু।

শেষের দুই ওভারে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু জন্য প্রয়োজন ছিল ৩৫ রানের ডি ভিলিয়ার্স ১৮তম ওভারেই নিয়েছেন ২৫ রান। ১৭৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দেবদুত পাড্ডিকাল এবং অ্যারোন ফিঞ্চ মিলে দারুণ সূচনা করেন। তবে ১১ বলে ফিঞ্চ ১৪ রান করে আউট হয়ে যান। দলীয় সংগ্রহ এ সময় ছিল ২৩।

এরপর পাড্ডিকাল আর বিরাট কোহলি মিলে ঝড় তোলেন। ১০২ রানের মাথায় পড়ে দ্বিতীয় উইকেট। ৩৭ বলে ৩৫ রান করে আউট হন পাড্ডিকাল। ৩২ বলে ৪৩ রান করেন বিরাট কোহলি। ১টি বাউন্ডারির সঙ্গে ছক্কা মারেন ২টি। ১০২ রানের মাথায় আউট হয়ে যান বিরাট কোহলিও।

এ সময় ম্যাচের মোড় ঘুরে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু গুরকিরাত সিংকে নিয়ে এবি ডি ভিলিয়ার্স ম্যাচ শেষ করে দেন ২ বল হাতে থাকতেই। ১৭ বলে ১৯ রানে অপরাজিত থাকেন গুরকিরাত সিং। রাজস্থানের হয়ে ১টি করে উইকেট নেন স্রেয়াশ গোপাল, কার্তিক তেয়াগি এবং রাহুল তেওয়াতিয়া। জোফরা আর্চার ৩.৪ ওভার বল করে দেন ৩৮ রান। কোনো উইকেটই পাননি তিনি।