আলুর নতুন দাম নির্ধারণ

আলুর দাম ও সরবরাহ নিয়ে অচলাবস্থা নিরসনে খুচরা ও পাইকারি বাজারে ৫ টাকা বাড়িয়ে আলুর দাম পূনঃনির্ধারণ করেছে সরকার । মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর খামাড়বাড়িতে ব্যবসায়ী, হিমাগার মালিকসহ সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সাথে বৈঠকের পর এ দাম নির্ধারণ করে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, খুচরা বাজারে আলু এখন থেকে সর্বোচ্চ ৩৫ টাকা এবং পাইকারিতে ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হবে। আর হিমাগারে বিক্রির দাম ৪ টাকা বাড়িয়ে নির্ধারণ হয়েছে ২৭ টাকা।

দেশে পর্যাপ্ত মজুদ থাকার পরেও দুই সপ্তাহের ব্যবধানে দ্বিগুন হয়েছে আলুর দাম। খুচরা বাজারে পণ্যটির দাম ওঠে ৬০ টাকা পর্যন্ত । এ পরিস্থিতিতে ৭ অক্টোবর আলুর দাম কেজি প্রতি খুচরা বাজারে ৩০ টাকা, পাইকারিতে ২৫ ও হিমাগারে ২৩ টাকা নির্ধারণ করে দেয় সরকার।

তবে বেধে দেয়া দামে আলু বিক্রি করতে অস্বীকৃতি জানান ব্যবসায়ীরা। হিমাগার থেকে আলু সরবরাহ না করায় ফাঁকা হয়ে পড়ে রাজধানীর অনেক আলুর আড়ত। সরবরাহ সংকটে ঘাটতি পড়ে খুচরা বাজারেও। উৎপাদন কম ও অন্যান্য কারণ দেখিয়ে আলুর দাম পুনঃবিবেচনার দাবি তোলেন ব্যবসায়ীরা।

এরই প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার বিকেলে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের সাথে বৈঠকে বসেন তারা। আলোচনার পর ৫ টাকা বাড়িয়ে নতুন দাম নির্ধারণ হয় যা কার্যকর হবে বুধবার থেকে।নতুন নির্ধারিত দামকে যৌক্তিক বলছে হিমাগার মালিকদের সংগঠন। সরকার নির্ধারিত দাম না মানলে ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা না করার হুশিয়ারিও দেয় সংগঠনটি।

আলোচনার মাধ্যমে আলুর যৌক্তিক দাম নির্ধারণ করা হয়েছে বলছেন আড়তদাররাও।তবে আগামীতে আলুর উৎপাদন কমা বা অন্য কোনো সমস্যা হলে সরকারকে আবারও আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।