আমি শুধু অন্যায়ের প্রতিবাদ করেছিলাম : নিক্সন চৌধুরী

ফরিদপুর-৪ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মুজিবর রহমান নিক্সন চৌধুরী বলেছেন, গত ১০ অক্টোবর চরভদ্রাসন উপজেলা পরিষদ উপনির্বাচনে ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে আমার কর্মীদের হয়রানি করার কারণে আমি শুধু প্রতিবাদ করেছিলাম। আমি কোনো অন্যায় করিনি।শুক্রবার (২৪ অক্টোবর) সন্ধ্যায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মোশারফ হোসেন মুসার স্মরণসভায় তিনি এ কথা বলেন।

নিক্সন চৌধুরী বলেন, গত সাত বছরে আমি এমপি হিসেবে একটি টাকাও চুরি করি নাই, আমি ঘুষ খাইনি, খুন করিনি। একটি লোকও বলতে পারবে না যে, নিক্সন চৌধুরী আজ পর্যন্ত সরকারি একটি টাকাও আত্মসাৎ করেছেন। তারপরও আমার নামে মামলা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমার কর্মীদের রক্ষা করার জন্য এ রকম একশ’ মামলা খেতে আমি ভয় পাই না। আমি সাধারণ জনগণ ও কর্মীদের নিরাপদে রাখতে প্রতিবাদ করেই যাব। এতে যদি আমাকে ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলানো হয় তাতেও আমি ভয় পাই না। স্থানীয় নেতা আনোয়ার আলী মোল্যার সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন স্থানীয় নেতা মো. শাহজাহান মোল্যা, রাসেল জামান, মিজানুর রহমান, মুন্নাফ মোল্যা প্রমুখ।

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘন এবং সরকারি কর্মকর্তাদের ভয়ভীতি প্রদর্শন, গালিগালাজ ও হুমকির অভিযোগে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য নিক্সন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ১৫ অক্টোবর মামলা করে নির্বাচন কমিশন। এই মামলায় বর্তমানে তিনি হাইকোর্ট থেকে নেয়া নেয়া আট সপ্তাহের আগাম জামিনে রয়েছেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, সাংসদ নিক্সন চৌধুরী ৯ অক্টোবর সকালে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকারকে ফোন করে নির্বাচনে অধিকসংখ্যক ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন। অধিকসংখ্যক ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের কারণে তাঁর সমর্থিত প্রার্থী পরাজিত হলে মহাসড়ক অবরোধ করাসহ নানা ধরনের ভয়ভীতি দেখান ও অশোভন মন্তব্য করেন। এ ছাড়া নির্বাচনের দিন আচরণবিধি লঙ্ঘন করায় ভাঙ্গার সহকারী কমিশনার (ভূমি) এক ব্যক্তিকে আটক করেন।

এ ঘটনায় সাংসদ ইউএনওর মুঠোফোনে তাঁকে ও সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেটকে অত্যন্ত অশালীন ভাষায় গালিগালাজ ও ভয়ভীতি দেখান। তা ছাড়া সাংসদ নিক্সন চৌধুরী নির্বাচনী এলাকায় উপস্থিত হয়ে নির্বাচনী কার্যকলাপে অংশ নিয়ে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন।