ইসরায়েলের সঙ্গে সুদানের চুক্তি রুখে দেওয়ার ঘোষণা

ইসরায়েলের সঙ্গে কথিত সম্পর্ক স্বাভাবিককরণ চুক্তি প্রত্যাখ্যান করেছে সুদানের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। তারা চুক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছে। এ নিয়ে রাজধানী খার্তুমে বিক্ষোভ করেছেন হাজার হাজার মানুষ। সকলের একটাই দাবি, চুক্তি করা যাবে না। এটিকে প্রতিহত করতে হবে।

সুদানের পপুলার কংগ্রেস পার্টি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, দেশের জনগণ এই চুক্তি মেনে নিতে বাধ্য নয়। সুদানের নাগরিকরা তাদের ঐতিহাসিক অবস্থান মেনে চলবে এবং কথিত স্বাভাবিককরণ চুক্তি প্রতিহত করতে একটি বৃহত্তর ঐক্যের মধ্য দিয়ে কাজ করবে। পাশাপাশি আইনসঙ্গত অধিকার রক্ষায় ফিলিস্তিনিদের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখবে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, এ চুক্তির নিন্দা জানিয়ে ও প্রতিবাদে সরকার আয়োজিত শনিবারের একটি ধর্মীয় সম্মেলন থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী সাদিক আল-মাহদি।

পপুলার কংগ্রেস পার্টির আরেক নেতা কামাল ওমর পৃথক এক বিবৃতিতে বলেন, দেশের বর্তমান সরকার অন্তর্বর্তীকালীন, নির্বাচিত নয়। সে কারণে তাদের ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ক্ষমতা নেই। এই সরকার আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থাকে খুশি করতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

মাত্র দুই মাসের ব্যবধানে তৃতীয় আরব দেশ হিসেবে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিককরণ চুক্তি করতে সম্মতি জ্ঞাপন করেছে সুদান। শুক্রবার এক যৌথ বিবৃতিতে এ ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, সুদান ও ইসরায়েল সম্পর্ক স্বাভাবিক করার বিষয়ে এবং নিজেদের মধ্যকার দ্বন্দ্বের অবসান ঘটাতে একমত হয়েছে। একই সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আশা প্রকাশ করে বলেন, ফিলিস্তিন ও সৌদি আরবসহ অন্যান্য আরব দেশগুলোও শিগগিরই ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিককরণ চুক্তি করতে রাজি হবে।

এর আগে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু, সুদানের প্রধানমন্ত্রী আবদাল্লা হামদোক ও ট্রানজিশনাল কাউন্সিলের প্রধান আবদেল ফাত্তাহ আল-বুরহানের সঙ্গে ফোনালাপে অংশ নেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেখানেই তিনি এ ব্যাপারে উভয় দেশের নেতাদের কাছ থেকে সম্মতি আদায় করেন।