এবার ব্যাঙ্গালোরকে উড়িয়ে দিয়ে প্রথম দল হিসেবে প্লে-অফে মুম্বাই

আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকে ৫ উইকেটে হারিয়ে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে প্রথম দল হিসেবে এবারের আসরে প্লে-অফ নিশ্চিত করেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) ম্যাচটিতে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে দুই ওপেনার দুর্দান্ত ব্যাটিং করে বিশাল সংগ্রহের আশা জাগান। তবে কোহলি-ডি ভিলিয়ার্সদের ব্যর্থতায় বড় সংগ্রহ না পেলেও চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে ব্যাঙ্গালুরু। ২০ ওভারে ৬ উইকেটে হারিয়ে ১৬৪ রান তোলে তারা। জবাবে সূর্যকুমার যাদবের দারুণ ব্যাটিংয়ে ৫ বল আগেই জয় তুলে নেয় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।

লক্ষ্য তাড়াও শুরুটা ভালো হয়নি মুম্বাইয়ের। দুই ওপেনার ইশান কিষান ও ডি কক দুজনেই ব্যর্থ হয়েছেন। তবে ওয়ানডাউনে নেমে শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করে দলের জয় নিশ্চিত করেই মাঠ ছাড়েন সূর্যকুমার যাদব। তার ৪৩ বলে ১০ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায় অপরাজিত ৭৯ রানের ইনিংসে ১৯.১ ওভারেই ৫ উইকেট হাতে রেখে জয় তুলে নেই বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা

এর আগে আবু ধাবির শেখ জায়েদ ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতেছিলেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক কাইরন পোলার্ড। টস জিতে তিনি ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান কোহলির দলকে। বিরাাট কোহলিও চেয়েছিলেন, যে কোনো মূল্যে প্রথমে ব্যাট করার।

আমন্ত্রিত হয়ে ব্যাট করতে নেমে জস ফিলিপ এবং দেবদুত পাড্ডিকাল ৭.৫ ওভারেই গড়ে ফেলেন ৭১ রানের জুটি। ২৪ বলে ৩৩ রান করে এ সময় ফিলিপ আউট হয়ে গেলে মড়ক লাগে ব্যাঙ্গালুরুর ইনিংসে।

একপাশে পাড্ডিকাল দারুণ ব্যাটিং করে গেলেও অন্য পাশে আশা যাওয়ার মিছিল অব্যাহত ছিল। ৯ রান করে আউট হয়ে যান বিরাট কোহলি। ১২ বলে ১৫ রান করে আউট হন এবি ডি ভিলিয়ার্স। শিভাম দুবে করেন ২ রান। ক্রিস মরিসের ব্যাট থেকে আসে ৪ রান। গুরকিরাত সিং ১১ বলে অপরাজিত থাকেন ১৪ রানে। ওয়াশিংটন সুন্দর করেন ১০ রান।

শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেট হারিয়ে ব্যাঙ্গালুরুর স্কোর ওঠে ১৬৪ রান। মুম্বাইয়ের হয়ে সবচেয়ে ইকনোমি বোলিং করেন জসপ্রিত বুমরাহ। বলতে গেলে একাই তিনি ব্যাঙ্গালুরুর রান আটকে রাখেন। ৪ ওভারে মাত্র ১৪ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন তিনি। ট্রেন্ট বোল্ট, রাহুল চাহার এবং কাইরন পোলার্ড নেন ১টি করে উইকেট।