ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজকে সামনে রেখে দল গঠনের কাজ শুরু করে দিয়েছে নির্বাচকরা

দেশের ক্রিকেটে পুরোদমে শুরু হচ্ছে ক্রিকেট ম্যাচ। বিসিবি প্রেসিডেন্ট কাপের পর এবার আগামী নভেম্বরে ৫ দলের একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। এদিকে এই সিরিজ শেষ হওয়ার পর আগামী বছরের শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দেশের মাটিতে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলার কথা রয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের।

কিন্তু এখনও এই সিরিজ নির্ভর করছে বাংলাদেশের কোভিড পরিস্থিতির উপর। বর্তমানে বাংলাদেশে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও ধারণা করা হচ্ছে আগামী শীতে বড় ধরনের ধাক্কা দিতে পারে বাংলাদেশে। তাই এখনও এই সিরিজ নিশ্চিত করতে পারেনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। তবে বসে নেই বিসিবি।

ইতিমধ্যে এই সিরিজকে সামনে রেখে নানা পরিকল্পনা সাজাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। চলতি সপ্তাহেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের কাছে কোভিডের একটা গাইডলাইন পাঠানো হচ্ছে। তাই বাংলাদেশ দলের নির্বাচকরা ও এই সিরিজকে সামনে রেখে দল গঠনের কাজ শুরু করে দিয়েছে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন বলেন, ‘আমরা এখন যে পরিস্থিতিতে আছি আছি এই সময়ে আসলে ফিউচার নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করা খুব মুশকিল, কারণ আমরা আসলে আমরা জানিনা ডিসেম্বর মাসে কি অবস্থা দাঁড়াবে। সামনে কি অবস্থা দাঁড়াবে তাও জানি না।

বাট এরকম পরিস্থিতিতে খেলতে হলে যেটা করা দরকার সেটাই আমরা করছি। পরিস্থিতির উপরে তো আসলে আমাদের হাত নেই। সেটা নিয়ে চিন্তা না করলেই ভাল। আমরা বরং খেলতে হলে কি করতে হবে সেটা নিয়ে চিন্তা করছি। আমার মনে হয় আমাদের জন্য সেটাই বেশি ইম্পরট্যান্ট।’

তবে ঠিক কতদিন শ্রীলঙ্কা জাতীয় ক্রিকেট দলকে বাংলাদেশে এসে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে তা এখনো নিশ্চিত করে বলতে পারেননি হাবিবুল বাশার সুমন। তবে এই ব্যাপারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে ইতিমধ্যেই যোগাযোগ শুরু করে দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়ার সব প্রটোকলেই মেনে নেবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তো সবসময় একটা নির্দেশন দিয়েই থাকেন। আগেও দিয়েও এসেছেন, এখনো দিচ্ছেন। পরিস্থিতি যেরকমই হোক সেই অনুযায়ী নতুন কোনো নির্দেশনা থাকলে সেটাও দিবেন। বাকি দেশগুলো আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে যে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করছেন, যে প্রটোকলটা মেনে চলছেন সেটা কিন্তু আমরা ঘরোয়া ক্রিকেটেও করছি।’